বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০৬:৫৮ পূর্বাহ্ন

তুরস্কে ভ্রমনকারী পর্যটকের সংখ্যা এত বাড়ার কারন জেনে নিন!!!

তুরস্কে ভ্রমনকারী পর্যটকের সংখ্যা এত বাড়ার কারন জেনে নিন!!!

তুরস্কে ভ্রমনকারী পর্যটকের সংখ্যা এত বাড়ার কারন জেনে নিন!!!

তুরস্ক ভ্রমণে বিদেশি পর্যটকদের আগ্রহ বাড়ছে। এ বছর শেষ হতে না হতেই ইতিমধ্যে মুসলিম প্রধান এ দেশটিতে ভ্রমণ করেছেন ৩ কোটি ২ লাখ বিদেশি পর্যটক। যা গতবারের তুলনায় ২৩ ভাগ বেশি। বুধবার তুরস্কের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা আনাদলু এজেন্সিকে দেয়া বিশেষ সাক্ষাৎকারে এসব তথ্য জানান দেশটির পর্যটন মন্ত্রী মেহমেত নূরী এরসোরি।

তুরস্কের সংস্কৃতি ও ইতিহাস

তুরস্কের সংস্কৃতি বৈচিত্র্যময়। গ্রিক, রোমান, ইসলামিক ও পশ্চিমা সংস্কৃতির মিশ্রণে তাদের একটি সংকর সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে। অটোমান সম্রাটদের সময় থেকে তুরস্কে পশ্চিমা সংস্কৃতি প্রবেশ করে। ১৯২৩ সালে তুরস্ক প্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সময় সাংস্কৃতিক জগতের আধুনিকায়নে বিপুল অর্থ বিনিয়োগ করা হয়। ললিতকলার বিভিন্ন শাখায় বিশেষ করে জাদুঘর, থিয়েটার, অপেরা হাউজ এবং অন্যান্য স্থাপত্যসহ বিভিন্ন শাখায় এসব বিনিয়োগ করা হয়।

তুরস্কের ইতিহাস দীর্ঘ ও ঘটনাবহুল। প্রাচীনকাল থেকে বহু বিচিত্র জাতি ও সংস্কৃতির লোক এলাকাটি দখল করেছে। ১৯০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দের দিকে এখানে হিটাইটদের বাস ছিল। তাদের সময়েই এখানে প্রথম বড় শহর গড়ে ওঠে। এরপর এখানে ফ্রিজীয়, গ্রিক, পারসিক, রোমান এবং আরবদের আগমন ঘটে। মধ্য এশিয়ার যাযাবর তুর্কি জাতির লোকেরা ১১শ শতকে দেশটি দখল করে এবং এখানে সেলজুক রাজবংশের পত্তন করে। তাদের শাসনের মাধ্যমেই এই অঞ্চলের জনগণ তুর্কি ভাষা ও সংস্কৃতির সঙ্গে মিশে যায়। ১৩শ শতকে মোঙ্গলদের আক্রমণে সেলজুক রাজত্বের পতন ঘটে।

১৩ শতকের শেষ দিকে এখানে অটোমান বা উসমানীয় সাম্রাজ্যের পত্তন হয়। এরা পরবর্তী ৬০০ বছর তুরস্ক শাসন করে। আর আনাতোলিয়া ছাড়িয়ে মধ্যপ্রাচ্য, পূর্ব ইউরোপ এবং উত্তর আফ্রিকার এক বিশাল এলাকা জুড়ে বিস্তৃতি লাভ করে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর ওই সাম্রাজ্যের পতন ঘটে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 BangaliTimes.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com