বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ১০:১৫ পূর্বাহ্ন

মাথা কাটা গুজবে আতঙ্কিত মানুষ

মাথা কাটা গুজবে আতঙ্কিত মানুষ

মাথা কাটা গুজবে আতঙ্কিত মানুষ

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় ৮ মাসের শিশুর ঘাড়ে কাটা দাগ দেখে ‘ছেলেধরা’ এসেছে ‘মাথা কেটে’ নিতে গুজব ছড়ানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে আতংকিত হয়ে পড়েছে পুরো গ্রাম।

জানা যায় শনিবার (২০ জুলাই) দুপুরে উপজেলার হবিরবাড়ী ইউনিয়নের জীবনতলা গ্রামে। আঘাত পাওয়া শিশুটি উপজেলার জীবনতলা গ্রামের রাশেদের ছেলে শাওন (০৮) মাস। পুলিশ জানিয়েছে, শিশুর গলায় চেইন ছিল। কোনোভাবে সেটা দিয়ে ঘাড়ে কেটে গেছে। কিংবা অসাবধানতাবসত কোনোভাবে ব্লেডের আঘাত পেয়েছে। এমন কোনো বড় ঘটনা ঘটেনি এটি গুজব ছাড়া আর কিছু না।

অবশ্য গুজব ছড়িয়েছে ওই শিশুর মায়ের কথার কারণে। স্থানীয়রা জানায় শাওনের মা মানসিকভাবে অসুস্থ। তিনি একেক সময় একেক কথা বলেন। তার সন্তানের গলায় কাটা দাগ কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাড়ীর পিছনে তার ছেলেকে এক নারী গলায় ছুরি চালায়। এ সময় তিনি চিৎকার দিলে ওই নারী পালিয়ে যান। এই কথা আশেপাশের বাসিন্দারা জানতে পারে। পরে পুরো গ্রামে ‘ছেলেধরা’ এসেছে ‘মাথা কেটে’ নিতে গুজব ছড়িয়ে পড়ে।

অপরদিকে ধামশুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে একইদিন দুপুরে বসে বিশ্রাম নেয়ার সময় জনমনে সন্দেহের সৃষ্টি হওয়ায় এক কাজের বুয়া’কে গনপিটুনী দিয়ে আহত করেছে স্থানীয় উত্তেজিত জনতা। খবর পেয়ে ভালুকা মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মহিলাকে উদ্ধার করে ভালুকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে ভর্তি করেছে। গনপিটুনীর শিকার হওয়া ওই মহিলা’র নাম মালেকা খাতুন। সে উপজেলার পাঁচগাও গ্রামের জনৈক শাহ আলমের স্ত্রী। স্থানীয় একটি মোটর সাইকেল কারখানায় রান্নার কাজ করে।

ঘটনার দিন সকালে কাজে গিয়ে অসুস্থ্য অনুভব করায় ছুটি নিয়ে বাড়ী ফিরছিল। বিশ্রাম নেয়ার জন্য ধামশুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে গাছের ছায়া’র নীচে বসে। অপরিচিত মুখ দেখে স্থানীয়দের সন্দেহ হলে তাকে বিভিন্ন প্রশ্ন শুরু করে লোকজন। কয়েকজন কৌতুহলী হয়ে মহিলার সাথে থাকা ব্যাগ তল্লাশী শুরু করে। ব্যাগের মধ্যে রান্নার কাজে ব্যাবহৃত স্টিলের উল্টানো কাঠি পেয়ে সন্দেহ আরো বেড়ে যায়।

এ সময় ছেলে ধরা এবং গলাকাটা সিন্ডিকেটের লোক সন্দেহে মারধোর শুরু করে। খবরটি চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লে মুহুর্তের মধ্যে এলাকার শত শত নারী-পুরুষ ছুটে আসে। ঘটনাস্থল থেকে ফেসবুক লাইভ দেয়ায় এটি গনমাধ্যমসহ পুলিশের নজরে চলে যায়।

এ সময় হাসপাতাল চত্বরে শত শত উৎসুক জনতার ভীড় লেগে যায়। পুলিশী পাহারায় ভালুকা হাসপাতালে ওই মহিলার চিকিৎসা চলছে। স্থানীয়দের মতে স্কুলের সামনে সন্দেহ জনক আনাগোনা করায় এ ঘটনা ঘটে।

ভালুকা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মাইন উদ্দিন বলেন, এতটুকু বাচ্চার গলায় ধারালো ছুরি চালানো হলে তার গলা দ্বিখন্ডিত হয়ে যাওয়ার কথা। আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে জানতে পেরেছি, শিশুর মা অসুস্থ। তিনি বিভিন্ন সময় বিভিন্নরকম কথা বলেন। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি তারাও কাউকে পালিয়ে যেতে দেখেননি। গ্রামবাসীকে আতংকিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়ে গুজবে কান না দিতেও অনুরোধ জানান তিনি। এমন কোনো ঘটনা ঘটে থাকলে আইন নিজের হাতে তুলে না নিয়ে পুলিশকে জানানোর আহ্বান জানান ওসি মো. মাইন উদ্দিন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 BangaliTimes.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com