সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০৩:১৬ পূর্বাহ্ন

বরিশালে ভয়ংকর ‘আব্বা গ্রুপ’

বরিশালে ভয়ংকর ‘আব্বা গ্রুপ’

বরিশালে ভয়ংকর ‘আব্বা গ্রুপ’

‘গ্যাং কালচারের’ নামে দিন দিন ভয়ংকর হয়ে উঠছে বরিশালের কিশোরদের একটি অংশ। বেশ কিছুদিন ধরেই ৪৫ সদস্যের ‘আব্বা গ্রুপ’টি বরিশালে আতঙ্ক সৃষ্টি করে চলছে।

বেপরোয়া হয়ে ওঠা ভয়ংকর এই গ্রুপের বিরুদ্ধে একের পর এক মামলা হলেও তাদের লাগাম টানা যাচ্ছে না। মাঝেমধ্যে পুলিশ এদের জেলে পাঠালেও তাদের ‘মুরব্বিদের’ আশীর্বাদে মুক্ত হয়েই দ্বিগুণ উৎসাহে লিপ্ত হচ্ছে অপকর্মে। স্থানীয়রা বলছেন, কিশোর সন্ত্রাসীদের নিয়ে গঠিত ‘আব্বা গ্রুপ’টি মূলত নগরীর প্রাণকেন্দ্র সদর রোডকেন্দ্রিক।

পরেশ সাগরের মাঠ, বাংলাদেশ ব্যাংক রোডের মুখে, জিলা স্কুল মোড় এবং সিটি কলেজ ঘিরেই তাদের আড্ডা ও অপকর্মের স্থল। ‘আব্বা গ্রুপের’ নেতৃত্বে থাকা সৌরভ বালা ও তানজিম নামের দুই বখাটে যুবক বরিশাল জেলা ছাত্রলীগের এক নেতার ছত্রছায়ায় আছে। একসময় জেলা ছাত্রদলের এক যুগ্ম আহ্বায়কের ছত্রছায়ায় ছিল। রাজনৈতিক বাস্তবতায় ভোল পাল্টে গ্রুপটি ছাত্রলীগের অনেক নেতার আনুকূল্য পাওয়ার চেষ্টা করলেও কেউ তাদের গ্রহণ করেনি। দুই বছর ধরে তারা জেলা ছাত্রলীগের প্রভাবশালী এক নেতার পেটোয়া বাহিনী হিসেবেও কাজ করছে।

বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানার এক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, গ্রুপের কাউকে গ্রেফতার করা হলেও ছাত্রলীগ নেতাদের ‘তদবির’ যন্ত্রণায় থাকতে হয় পুলিশকে। তাদের বিপুল পরিমাণ ধারালো অস্ত্রের মজুদের নির্ধারিত জায়গাও আছে।

কলেজকেন্দ্রিক নানা অপকর্মের অভিযোগের ভিত্তিতে সোমবার পুলিশ এই গ্রুপের সৌরভ বালাকে গ্রেফতার করে। এ নিয়ে কথা হয় সিটি কলেজের ক্যাশিয়ার এসএম সাইদুর রহমানের সঙ্গে। তিনি বলেন, ২০১৫ সালে কলেজের অফিস কক্ষের আলমারি ভেঙে টাকা লুট করেছিল তারা। ২৯ জুলাই ওই মামলায় সাক্ষ্য দিয়ে ফেরার পরই সৌরভ বালারা ক্যাম্পাসে ঢুকে হট্টগোল করে। খবর পেয়ে পুলিশ সৌরভ বালা ও ইয়ামিন হোসেন জুয়েলসহ তিন যুবককে আটক করে। কলেজ কর্তৃপক্ষ হট্টগোলের ওই ঘটনায় মামলা না করায় পুলিশ তাদের মেট্রো অধ্যাদেশে আদালতে পাঠায়।

বুধবার (৩১ জুলাই) আদালত থেকে ছাড়া পেয়েই দলবল নিয়ে কলেজ ক্যাম্পাসে ঢুকে সৌরভ, রুবেল ও ইয়ামিনরা অধ্যক্ষকে কুপিয়ে জখম করে। পরে অধ্যক্ষকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বুধবার রাতে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলার পর গ্রুপের রুবেলকে গ্রেফতার করা হয়। থানার ওসি নুরুল ইসলাম বলেছেন, হামলাকারী বাকি আসামিদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

জানা গেছে, এই গ্রুপের সদস্যরা সিটি কলেজের একটি রুম দখলে নিয়ে ‘টর্চার সেল’ করে সেখানে মাদক সেবন থেকে শুরু করে সব অপকর্মই করা হচ্ছিল। ধরে এনে এই কক্ষে চালানো হতো নির্যাতন। এছাড়া কলেজছাত্রীদের উত্ত্যক্ত করা, সিগারেট খেয়ে মেয়েদের মুখে ধোঁয়া ফেলা, জোর করে ছাত্রীদের সিগারেট খাওয়ানোর অভিযোগ নিত্যনৈমিত্যিক।

বাইরে থেকে মেয়ে নিয়ে আসার ঘটনাও ঘটেছে। তবে কর্তৃপক্ষ এসব দেখে না দেখার ভান করায় তারা দিন দিন আরও বেপরোয়া হয়ে উঠে। কলেজের ক্যাশিয়ার সাইদুর রহমান জানান, সাধারণ মানুষ তাদের কাছে জিম্মি। মান-সম্মানের ভয়ে অনেকের মধ্যেই তাদের এড়িয়ে যাওয়ার প্রবণতা রয়েছে। তবে লিয়াকত হোসেন নামে সদর রোডের এক ব্যক্তি জানান, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কার্যক্রম দেখে মনে হচ্ছে এই গ্রুপের চাপে আছে তারাও। নানা অপকর্মের পরও এদের বিরুদ্ধে সেভাবে কোনো অ্যাকশন নেয়া হচ্ছে না। সম্ভবত পুলিশ বড় কোনো হত্যাকাণ্ডের অপেক্ষা করছে।

আব্বা গ্রুপটি আগে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে এলেও এটি প্রথম আলোচনায় আসে ২০১৭ সালের ৫ এপ্রিল। জিলা স্কুলের ছাত্রদের সঙ্গে একটি বিরোধের জেরে ওইদিন সন্ধ্যায় আব্বা গ্রুপের প্রায় ২০ জন সদস্য ধারালো অস্ত্র নিয়ে রাস্তায় নামে। তারা জিলা স্কুলের মোড় থেকে ব্রাউন কম্পাউন্ড পর্যন্ত সড়কে বহুসংখ্যক গাড়ি ভাংচুর করে ও কয়েকটি বাড়িতেও হামলা চালায়।

এ সময় এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে জখম করে তারা। ওই ঘটনায় স্থানীয়দের সহায়তায় পুলিশ সৌরভ বালাকে ধারালো অস্ত্রসহ আটক করে। এ সময় স্কুলছাত্র সাগর হাওলাদার, রিফাতুল ইসলাম, তানভির আহসান জিয়াদ, শোভন বিশ্বাস, তৌসিক হাওলাদার, নাজিম উদ্দিন রাতুল, আবদুল্লাহ আল তামিম এবং আরমান শরীফকে আটক করে পুলিশ। আটক সবাই নগরীর বিএম স্কুল, মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, উদয়ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং একে ইন্সটিটিউটের ছাত্র ছিল। কিছুদিন পর জেল থেকে বেরিয়েই গ্রুপের সদস্যরা আরও বেপরোয়া হয়ে ওঠে। সবার মুখে মুখে চলে আসে এই আব্বা গ্রুপের নাম। চাঁদা না পেয়ে এই গ্রুপের ২৫-৩০ জন সদস্য ওই বছর ২৪ অক্টোবর নগরীর গির্জা মহল্লায় মোবাইলের ফোনের দোকান ভাংচুর করে এবং দোকান মালিক সোহেল ও জুয়েলকে বেধড়ক পেটায়।

ওই ঘটনায় ৭ জনকে আসামি করে থানায় মামলা হয়েছে বলে জানান কোতোয়ালি মডেল থানার সাবেক সেকেন্ড অফিসার সত্যরঞ্জন খাসকেল। এরপর থেকে বরিশাল নগরজুড়ে তাদের চাঁদাবাজি চলতে থাকে। এছাড়া নগরীর গার্লস স্কুলগুলো ছাড়াও বরিশাল সরকারি মহিলা কলেজের সামনে মেয়েদের উত্ত্যক্ত করার ঘটনা ছিল নিয়মিত। এদের বিরুদ্ধে ভাড়ায় খাটার অভিযোগও রয়েছে। সৌরভ বালা ছাড়াও গ্রুপের সামনের কাতারে থাকা তানজিম কয়েক বছর আগে একবার ঢাকা-বরিশাল লঞ্চে এক নারীর শ্লীলতাহানির অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছিল।

‘আব্বা গ্রুপ’ ছাড়াও বরিশাল বিএম কলেজে আজমল হোসেন রুমনের নেতৃত্বে একটি গ্রুপ সক্রিয় রয়েছে। গ্রুপের প্রধান রুমনের বিরুদ্ধে কাউনিয়া থানায় হত্যা মামলাও আছে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজি থেকে শুরু করে কলেজ ক্যাম্পাসে সন্ত্রাসী কার্যকলাপের বিস্তর অভিযোগ শিক্ষার্থীদের। কলেজের ফ্লাইট সার্জেন্ট ফজলুল হক হলের ১০১নং কক্ষে বসবাসরত আজমল হোসেন রুমনের বিরুদ্ধে ক্যাম্পাসে দোকান ভাংচুরের অভিযোগ ছাড়াও তার রুমে প্রায়ই বসে মাদক সেবনের বিশাল আড্ডা।

এক ছাত্র জানান, প্রতিদিন গড়ে এই হলেই ১৫ হাজার টাকার ইয়াবার চালান আসে। এর নিয়ন্ত্রণ করছেন আজমল হোসেন। বরিশাল মহানগর ছাত্রলীগের এক নেতার ছত্রছায়ায় তার কার্যক্রম চলছে বলে অভিযোগ। ফলে কলেজ কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেনি। এর পাশাপাশি নগরীর বটতলা, আলেকান্দা, বগুরা রোড, মেডিকেল কলেজের সামনে, ভাটারখাল ও কেডিসি, কাউনিয়া এবং পলাশপুর এলাকায় বেশ কয়েকটি কিশোর গ্যাং সক্রিয় হয়ে ওঠার খবর পাওয়া যাচ্ছে।

এ বিষয়ে সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন বরিশালের সাধারণ সম্পাদক কাজী এনায়েত হোসেন বলেন, কিশোর অপরাধ হয় পারিবারিক বন্ধন নড়বড়ে হয়ে যাওয়া, সন্তানের প্রতি বিধিনিষেধ কমে যাওয়ার কারণে। পাশাপাশি রাজনৈতিক দলের বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে এরা ওই দলের শক্তি বা পাওয়ার অর্জন করে গ্রুপ তৈরি করে। বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার সাহাবুদ্দিন খান যুগান্তরকে বলেন, কিশোররা যখন অপরাধ করে, তখন তাদের অপরাধীর চোখেই দেখি। সে যে ধরনের অপরাধ করবে, সেই রকম আইনে তার বিচার হবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 BangaliTimes.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com