বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:৩০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
১০ দিন ধর্মঘটেও চালের বাজারে প্রভাব পড়বে না, গ্যারান্টি: খাদ্যমন্ত্রী গাড়ির চাকার হাওয়া বের করে দিচ্ছেন ধর্মঘটকারীরা সময়মতো স্কুলে না আসায় প্রধান শিক্ষককে খুঁটির সঙ্গে বাঁধল এলাকাবাসী প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে নেদার‌ল্যান্ডসের রাজধানীতে প্রথমবার মাইকে আজান লবণকাণ্ডে ২২ ব্যবসায়ীকে আটক, ৫৬ জনকে জরিমানা ট্রাক মালিক-শ্রমিকদের আন্দোলনে বিএনপির সমর্থন টাঙ্গাইলে লবণের দাম বেশি নেয়ায় ১ লাখ টাকা জরিমানা প্রধানমন্ত্রীকে ক্ষমতা ছেড়ে দিয়ে নতুন নির্বাচনের দাবি ইসলামী আন্দোলনের তুরস্কের ভূমধ্যসাগরীয় সামরিক মহড়ায় যোগ দিচ্ছে পাকিস্তান লবণ ইস্যু: ডিএমপিসহ সারা দেশে পুলিশকে মাঠে নামার নির্দেশ
বিদ্যালয়ের ক্যালেন্ডারে ১৫ আগস্ট ‘জাতীয় আনন্দ দিবস’

বিদ্যালয়ের ক্যালেন্ডারে ১৫ আগস্ট ‘জাতীয় আনন্দ দিবস’

বিদ্যালয়ের ক্যালেন্ডারে ১৫ আগস্ট ‘জাতীয় আনন্দ দিবস’

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের একটি বেসরকারি বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্যালেন্ডারে ১৫ আগস্ট ‘জাতীয় শোক দিবস’কে ‘জাতীয় আনন্দ দিবস’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

সেটি আবার বিপণনও করেছেন বিদ্যালয়সংশ্লিষ্টরা।

এ ঘটনায় স্থানীয়ভাবে ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে প্রশাসনকে ওই বিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলেছেন তারা।

তবে শুধু স্থানীয়রাই নয়, বিদ্যালয়টির এমন কাণ্ডে ফুঁসে উঠেছে নেটিজেন। ইতিমধ্যে ফেসবুকে বিদ্যালয়টির বার্ষিক ছুটির সেই ক্যালেন্ডারটি ভাইরাল হয়েছে।

সেখানে দেখা গেছে, পবিত্র শবেকদর, জুমাতুল বিদা ও ঈদুল ফিতরের ছুটির পর (১০ জুন থেকে ২২ জুন) যে ছুটিটি রয়েছে, তা হলো ১৫ আগস্ট।

আর সেদিনটিকে ‘জাতীয় আনন্দ দিবস’ হিসেবে লেখা হয়েছে।

এ নিয়ে যমুনা টেলিভিশনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ হয়েছে।

জানা গেছে, ২০১৯ সালের এ ক্যালেন্ডারটি ছাপানো হয়েছে বেগমগঞ্জের মীর ওয়ারিশপুর ইউনিয়নের কেন্দুরবাগ বাজারসংলগ্ন অক্সফোর্ড আইডিয়াল স্কুলের নামে।

বিদ্যালয়টির এমন কাণ্ডে স্থানীয়রা বলছেন, প্রশাসনকে ঘুমে রেখে কীভাবে ‘জাতীয় শোক দিবস’কে ‘জাতীয় আনন্দ দিবস’ লেখা হয়েছে!

বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক এর জন্য দায়ী বলে দুষছেন তারা। এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষককে জিজ্ঞাসা করেছেন অভিভাবকরা।

জবাবে এটিকে ‘অনিচ্ছাকৃত ভুল’ বলে উল্লেখ করেছেন বলে জানিয়েছেন বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক। তবে এখন পর্যন্ত ভুল সংশোধনের কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

এ বিষয়ে বেগমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহবুবুর রহমান বলেন, আমরা অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তের জন্য উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আলী আশরাফকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। প্রমাণিত হলে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 BangaliTimes.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com