মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:২৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মন্দবাগ রেল স্টেশনে দুই ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে কমপক্ষে নিহ’ত ১৭ ৫,৩০০ কোটি ব্যারেল তেলসমৃদ্ধ খনি আবিষ্কার করল ইরান জাতিসংঘের আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গণহত্যা মামলা ট্রাম্পকে ‘ঈশ্বর’ ভেবে পূজা করছেন ভারতীয়রা! ভাইরাল ভিডিও বাংলাদেশকে না দিলেও মালদ্বীপকে পেঁয়াজ দিচ্ছে ভারত বাবরি মসজিদের রায় দিল যৌন কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত বিচারপতি! ১০ বছরে ছয়বার বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়েছে: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী আদালতের ওপর সংখ্যালঘুদের বিশ্বাস উঠে গেছে: মাওলানা মাহমুদ মাদানী বাবরি মসজিদ রায় মানবাধিকারের লঙ্ঘন: জামায়াত ইডেনে ফের ছাত্রলীগ নেত্রীদের মারামারি, আহত একজনকে হাসপাতালে ভর্তি
ছেলেদের জ্বালায় জিমে ঢোকা যায় না: তসলিমা নাসরিন

ছেলেদের জ্বালায় জিমে ঢোকা যায় না: তসলিমা নাসরিন

ছেলেদের জ্বালায় জিমে ঢোকা যায় না: তসলিমা নাসরিন

বাংলাদেশ থেকে নির্বাতিস, বিতর্কিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন আজ সোমবার (১৯ আগস্ট) তার নিজের ফেসবুক পেইজে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সেখানে তিনি যুব সমাজকে নিয়ে নানান ধরনের কথা বলেছেন। তার স্ট্যাটাসটি বিডি২৪লাইভের পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হল-

ছেলেদের জ্বালায় জিমে ঢোকা যায় না, মেশিনই খালি পাওয়া যায় না। ইয়াং ইয়াং ছেলে, ২২ /২৩ বা বড়জোর ২৪/২৫ বছর বয়স, পাগলের মতো ব্যায়াম করছে, ঘণ্টার পর ঘণ্টা জিমে পড়ে থাকছে। সিক্স প্যাকের নেশায় পেয়েছে এদের। শরীরে এক ফোঁটা চর্বি নেই, কোনও অসুখ বিসুখ নেই, কিন্তু মাসল বানাবে। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজের শক্ত শক্ত ফোলা ফোলা মাসল দ্যাখে আর আনন্দ পায়। পারলে ২৪ ঘণ্টা এরা পড়ে থাকে জিমে। যে বয়সটায় বই পড়বে, ভ্রমণ করবে, সমাজের নানা বিষয়ে আলোচনা করবে, শিল্প, সাহিত্য, নাটক সিনেমা, বিজ্ঞান, রাজনীতি, সমাজনীতি, অর্থনীতি, নারীবাদ, সাম্যবাদ, পুঁজিবাদ, ইতিহাস ভুগোল, অধিকার আন্দোলন ইত্যাদি নিয়ে মেতে থাকবে, সেই বয়সটা জিমে শেষ করছে। ফিল্মের নায়কদের ছবি দেখে, আর স্বপ্ন দেখে ওদের মতো শরীর বানানোর। নায়কগুলো অভিনয়ের অ-ও জানে না, তাই মাসলই তাদের ভরসা।

আর এই প্রজন্মেরও মনে হচ্ছে যুক্তিবুদ্ধির য-ও মাথায় নেই, মাসলই ভরসা। কুসংস্কারে আচ্ছন্ন, কিন্তু চমৎকার শরীর চাই। জিম ভালো জিনিস। ব্যায়াম করলে শরীর সুস্থ থাকে। কিন্তু তার জন্য একট বয়স আছে। তার জন্য একটা সময়ও আছে। শরীর শরীর শরীর। আগে ভাবতাম, মেয়েরাই বুঝি শরীর নিয়ে অবসেসড। এখন দেখছি ছেলেরাই বেশি। আজকাল তো পারলারেও ছেলেরা ম্যানিকিওর পেডিকিওর, ফেসিয়াল ইত্যাদি করতে ঢুকছে। পারলারেও বোধহয় একসময় জিমের মতো ছেলেদের ভিড়ই বেশি হবে। পারলারেও হয়তো ছেলেদের জ্বালায় ঢোকা যাবে না। সব চেয়ারগুলো ওরাই দখল করে বসে থাকবে।

মেয়েদের ব্যায়াম, মেয়েদের সাজগোজ সবই ছেলেরা দখল করে নিচ্ছে। সংসারে মেয়েদের কিচেনটা কবে দখল করবে? ঘর দোর সাফ করার, বাচ্চা কাচ্চা লালন করার কাজটা কবে দখল করবে? ওগুলো দখল করলে তো একটা কাজের কাজ হয়।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 BangaliTimes.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com