শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:৪৩ অপরাহ্ন

জট খুলেছে ডিসির রুমে লাল-সবুজ বাতির রহস্যের

জট খুলেছে ডিসির রুমে লাল-সবুজ বাতির রহস্যের

জট খুলেছে ডিসির রুমে লাল-সবুজ বাতির রহস্যের

একের পর এক নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগ শোনা যাচ্ছিল জামালপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীরের বিরুদ্ধে। এবার হয়তো এই গুঞ্জন সত্যি হতে চলছে। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে জেলা প্রশাসকের অনৈতিক কর্মের একটি ভিডিও। যা বর্তমানে জামালপুরের ‘টক অব দ্যা টাউন’।

নিজ অফিস কক্ষে ডিসি অফিসের এক নারী কর্মচারীর সাথে এমন ভিডিও প্রকাশ পাওয়ায় সমালোচনার ঝড় উঠেছে বিভিন্ন মহলে।

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) রাতে খন্দকার সোহেল আহমেদ নামে একটি ফেসবুক আইডি থেকে জেলা প্রশাসকের আপত্তিকর ভিডিওটি পোস্ট কর হয়। তবে শুক্রবার সকাল থেকে ওই আইডিতে আর সেই ভিডিওটি খুঁজে পাওয়া যায়নি। কিন্তু তার আগেই ফেসবুক এবং মেসেঞ্জারের বিভিন্ন গ্রুপে তা ছড়িয়ে পড়ে।

এ নিয়ে সংবাদমাধ্যমগুলোতে খবর প্রকাশ হওয়ার পর ব্যাপক আলোচনার জন্ম দেয়। বিভিন্ন মিডিয়ার খবরে বলা হচ্ছিল, ভিডিওটি অফিসের ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরায় (সিসি) ধারণ করা। কিন্তু নিজের অফিসে বসানো সিসি ক্যামেরার সামনে এমন কাজ কেনো করতে যাবেন? এ বিষয়ে খোঁজ নিতে গিয়ে জানা গেলো ভিন্ন কথা। আসলে ওই রুমে কোনো সিসি ক্যামেরা ছিলোই না। ভিডিওটি ধারণ করা হয় গোপন ক্যামেরায়।

এ ঘটনায় ইতিমধ্যে আহমেদ কবীরকে ওএসডি (বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা) করা হয়েছে। তার জায়গায় নতুন ডিসি হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন মো. এনামুল হক। রবিবার (২৫ আগস্ট) এ সংক্রান্ত পৃথক দুটি আদেশ জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

এদিকে ডিসির রুমে লাল-সবুজ বাতির রহস্যের জট খুলতে শুরু হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক কর্মচারীরা জানান, ওই রুমটিতে টেবিল চেয়ার ছিল। আগের ডিসিরা সেখানে বিশেষ মিটিং করতেন। ডিসি আহমেদ কবীর ২০১৭ সালের ২৭ মে যোগদানের পর ওই রুম থেকে টেবিল চেয়ার সরিয়ে সেখানে খাট বসান। বলা হয়, রুমে তিনি বিশ্রাম নেবেন।

ওই কর্মচারীরা জানান, ডিসির রুমে আগে যাওয়ার জন্য দুইটি রাস্তা ছিল। তিনি এসে একটি রাস্তা বন্ধ করে দেন। দরজার উপরে লাল এবং সবুজ বাতি লাগিয়ে দেন। নারী নিয়ে ওই বিশ্রাম কক্ষে প্রবেশের সময় তিনি লাল বাতি জ্বালিয়ে দিতেন। পিয়নকে আগে থেকে বলা থাকতো, সবুজ বাতি না জ্বলা পর্যন্ত কাউকে যেন ভেতরে ঢুকতে দেওয়া না হয়। এদিকে ওই নারীর সঙ্গে ডিসির সম্পর্ক এতটাই ঘনিষ্ঠ হয়ে উঠে যে, অফিস সহায়ক হলেও তিনি খবরদারি করতেন অফিসের সবার সঙ্গে। তার ব্যবহারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছিল জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের একাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারী।

এদিকে ডিসি আহমেদ কবীরের আপত্তিকর ভিডিও গত বৃহস্পতিবার রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। বিভিন্ন গণমাধ্যম খবর প্রকাশ হয়। ডিসিকে তার অফিস সহায়ক এক নারীর সঙ্গে আপত্তিকরভাবে দেখা যায়। বিষয়টি নিয়ে জামালপুর জেলাবাসীসহ সারা দেশের মানুষের মাঝে তোলপাড় শুরু হয়। নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় বইয়ে যায়।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 BangaliTimes.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com