রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৭:৫৪ পূর্বাহ্ন

জেনে নিন স্ত্রীর মন জয়ের গোপন ৭টি কৌশল!

জেনে নিন স্ত্রীর মন জয়ের গোপন ৭টি কৌশল!

জেনে নিন স্ত্রীর মন জয়ের গোপন ৭টি কৌশল!

কথায় আছে সংসার সুখী হয় রমণীর গুণে। সংসার সুখের করতে স্বামী-স্ত্রী উভয়ের ছাড় দেয়ার মানসিকতা থাকতে হবে। এছাড়া সংসার সুখের করতে দুজনের ভালোবাসার বিকল্প নেই। পরিবারের কর্তা হিসেবে স্ত্রী ও সন্তানদের সুখী রাখার দায়িত্ব স্বামীর।সংসারের সবার বিষয়ে তার খোঁজ রাখতে হবে।

রুটগার্স বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষণায় বলা হয়েছে, সংসারে স্বামীর তুলনায় স্ত্রীকে সুখী রাখা বেশি কঠিন। তাই সংসারে যদি সুখ চান তবে অবশ্যই সবার আগে স্ত্রীকে সুখে রাখুন। তবে স্ত্রীকে সুখে রাখার কিছু কৌশল রয়েছে। আসুন জেনে নেই স্ত্রীকে সুখে রাখার কিছু কৌশল। এই কৌশলগুলো লেখা হয়েছে লাভ লানিং ওয়েবসাইটের প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করে।

ফোনে কথা বলুন : বেশিরভাগ সময়ে পরিবার বাজার সদাই ও শপিংয়ের জন্য স্ত্রীকে ফোন করা হয়।তবে স্ত্রীর ভালোবাসা পেতে এর বাইরে ফোন করে তার খোঁজ নিন। ফোন করে বলুন আমি তোমাকে মিস করছি।

ফুল ও উপহার কিনুন : ফুল ও উপহার পছন্দ করে সবাই। স্ত্রীর মন জয় করতে মাঝে মাঝে তাকে ফুল ও ছোট ছোট উপহার দিতে পারেন।

স্ত্রীর কথা শুনুন : সময় নিয়ে স্ত্রীর কথা শুনুন ও তাকে বোঝার চেষ্টা করুন। তার আবেগকে গুরুত্ব দিন।

ঘরের কাজে সহযোগিতা : বাসায় রান্নার কাজ ও সন্তানের যত্ন নিতে স্ত্রীকে সহযোগিতা করুন। সারা দিন অফিস করে এসে ঘরের কাজ করতে আপনার ইচ্ছা করবে না। আপনার স্ত্রীর ক্ষেত্রেও কিন্তু বিষয়টি তাই। তাই ঘরের কাজে স্ত্রীকে সাহায্য করুন।

স্বপ্ন পূরণে সাহায্য করুন : আপনার স্ত্রীর স্বপ্ন পূরণে যত্নশীল হোন। তার স্বপ্ন পূরণে সাহায্য করলে সে আপনার প্রতি নির্ভর করবে। আর এতে সে খুশিও হবে।

প্রসংশা করুন : স্ত্রীর মন জয় করতে চাইলে তার প্রসংশা করুন এবং ‘হ্যাঁ’ বলুন। তার কোনো কাজ যদি আপনার ভালো না লাগে তবে বুঝিয়ে বলুন।

জড়িয়ে ধরুন ও ভালোবাসি বলুন : স্ত্রীকে জড়িয়ে ধরা মন ও স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। কাউকে জড়িয়ে ধরলে মস্তিষ্ক থেকে ভালো অনুভূতির হরমোন বের হয়। আর এটি আমাদের সুখী করে। তাই স্ত্রীকে জড়িয়ে ধরুন ও ভালোবাসি বলুন।

‘যুদ্ধ যদি চাপিয়ে দেওয়া হয় তাহলে ইসলামাদ প্রস্তুত’ হুঁশিয়ারি পাক তথ্যমন্ত্রীর

কাশ্মীরকে আরেকটি ফিলিস্তিন বানানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ভারত। আর কোনো যুদ্ধ যদি চাপিয়ে দেওয়া হয় তাহলে ইসলামাদ প্রস্তুত থাকবে, টুইট বার্তায় এমন হুঁশিয়ারি দিয়েছেন পাকিস্তানের তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ হোসেন চৌধুরী।

কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিল প্রসঙ্গে এক টুইট বার্তায় ফাওয়াদ লেখেন, ‘কাশ্মীরে জনসংখ্যার অনুপাতে পরিবর্তন এনে এবং সেখানে বসতি স্থাপন করে কাশ্মীরকে আরেকটি ফিলিস্তিন বানানোর চেষ্টা করছে মোদি সরকার। সাংসদদের তুচ্ছ বিষয় নিয়ে দ্বন্দ্ব বন্ধ করতে হবে। রক্ত, ঘাম, চোখের পানি আর শ্রম দিয়ে ভারতকে প্রতিহত করতে হবে। যদি আমাদের ওপর কোনো ধরনের যুদ্ধ চাপিয়ে দেওয়া হয়, তবে সেটা মোকাবিলা করতে হবে।’

গত সোমবার ভারতের সংসদে সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের সিদ্ধান্তের প্রতিক্রিয়ায় পাকিস্তানের তথ্যমন্ত্রী এ ধরনের মন্তব্য করলেন। এদিকে ৩৭০ ধারা বাতিলের মধ্য দিয়ে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা রদ করা হয়েছে।

জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল এবং রাজ্য দুটিকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করার বিল লোকসভায় পাস হয়েছে। মঙ্গলবার ভারতের লোকসভায় সংবিধানের ৩৭০ ধারা বিলোপের বিলটি অনুমোদন দেওয়া হয়।

লোকসভায় পাসের পর এখন দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হবে জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ। জম্মু ও কাশ্মীর পুনর্গঠন সংক্রান্ত বিল রাজ্যসভায় পাস হওয়ার একদিন পরই লোকসভায় পাস হয় বিলটি।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও ক্ষমতাসীন বিজেপির সভাপতি অমিত শাহ প্রস্তাবটি লোকসভায় উত্থাপন করেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 BangaliTimes.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com