রবিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২০, ০৩:৫৫ অপরাহ্ন

#মুজিবনগর_মেহেরপুর

#মুজিবনগর_মেহেরপুর

#মুজিবনগর_মেহেরপুর

বাংলাদেশের ঐতিহাসিক ভ্রমণ স্থানগুলোর মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ জায়গা।(পূর্বনাম: বৈদ্যনাথতলা) মেহেরপুর জেলায় অবস্থিত এটি একটি ঐতিহাসিক স্থান । বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী সরকারের রাজধানী ছিল এখানে। স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী রাজধানী ছিল মুজিবনগর। এখানেই তৎকালীন বৈদ্যনাথতলা বর্তমান মুজিবনগরের আম্রকাননে ১৭ এপ্রিল সরকারের মন্ত্রী পরিষদ শপথ নিয়েছিল। এই সরকারের রাষ্ট্রপতি ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি ছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম। বাংলাদেশের প্রথম রাজধানীর ঐতিহ্য ধরে রাখতে এখানে গড়ে তোলা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি কমপ্লেক্স।

#দর্শনীয়_স্থানসমূহ_
১.#বাংলাদেশের_মানচিত্র: বাংলাদেশের মানচিত্র ওয়াচ টাওয়ার থেকে দেখা যাবে। বিভিন্ন জেলার মুক্তিযুদ্ধের ছোট ছোট চিত্র তুলে ধরা হয়েছে।
২.#মুজিবনগর_স্মৃতিসৌধ: স্মৃতিসৌধটি ২০.১০ একর জমির উপর স্থাপিত। ২৩টি কংক্রিটের ত্রিকোণাকার স্তম্ভ সমন্বয়ে এ স্মৃতিসৌধ নির্মিত। ২৩টি স্তম্ভ পাকিস্তানের ২৩ বছর শাসনের প্রতীক। ৩ ফুট ৬ ইঞ্চি উচ্চতায় ১৬০ ফুট ব্যাসে বেদীটি নির্মিত। বেদীর অর্ধাংশে স্তম্ভগুলো সারিবদ্ধভাবে দন্ডায়মান। গোলাকার বেদী ভূতল থেকে ভিন্ন ভিন্ন উচ্চতায় তিনটি ভাগে বিভক্ত। প্রথমটির উচ্চতা ভূমি থেকে ২ ফুট ৬ ইঞ্চি, দ্বিতীয়টির ৩ ফুট ও তৃতীয়টির ৩ ফুট ৬ ইঞ্চি। ২ ফুট ৬ ইঞ্চি উচ্চতার বেদীর অপরাংশ অসংখ্য গোলাকার বৃত্ত দ্বারা স্বাধীনতা যুদ্ধে ৩০ লক্ষ শহীদকে বুঝানো হয়েছে। তিন ফুট উচ্চতার বেদীর অপরাংশ অসংখ্য নুড়ি পাথরে আবৃত। এটি মুক্তিযোদ্ধা সাত কোটি বাঙালির ঐক্যবদ্ধ সংগ্রামের প্রতীক। মুজিবনগর সরকারের শপথগ্রহণের স্থানটি লাল সিরামিকের ইট দ্বারা আয়তক্ষেত্রে চিহ্নিত করা হয়েছে। বেদীতে আরোহণের সোপান নয়টি ধাপে বিভক্ত। সোপানের এ নয়টি ধাপ নয় মাসের মুক্তিযুদ্ধের অগ্রগতির প্রতীক।
৩.#অস্থায়ী_সরকার_গঠনের_চিএ: কিছু খন্ড চিত্র মূর্তি, মুক্তিযুদ্ধের চিত্র মূর্তি।
৪.#আম্রোকানন: বিশাল আম বাগান আছে, যা আম্রোকানন নামে পরিচিত। এছাড়া হেলিপ্যাড আছে, পাশে বর্ডার এলাকা আছে ইত্যাদি।

#যাওয়ার_রুট: দেশের যেকোনো জায়গা থেকে বাসে করে মেহেরপুর, এরপর মেহেরপুর থেকে বাসে করে মুজিবনগর (১৮ কি.মি.)।

#বিদ্রঃ ভ্রমনে গিয়ে ময়লা নির্দিষ্ট স্থানে ফেলেবেন, দয়াকরে যেখানে সেখানে ময়লা ফেলবেন না। প্লাস্টিকের ব্যাবহার কম করবেন। পরিবেশে নষ্ট না করে একটা সুন্দর মনোরম পরিবেশ সৃষ্টি করুন।
হ্যাপি ট্রাভেলিং😍

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 BangaliTimes.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com