রবিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২০, ০৫:১৯ অপরাহ্ন

“কেদারকণ্ঠ ট্রেকিং, উত্তরাখণ্ড, ভারত”

“কেদারকণ্ঠ ট্রেকিং, উত্তরাখণ্ড, ভারত”

"কেদারকণ্ঠ ট্রেকিং, উত্তরাখণ্ড, ভারত"

Kedarkantha Trekking, Uttarakhand, India

যারা লাইফের ফার্স্ট স্নো ট্রেকিং এর কথা ভাবছেন তাদের জন্য কেদারকন্ঠ একটা বেস্ট অপশন। অামাদের গ্রুপের সবার জন্যও তাই ছিল।

কেদারকণ্ঠের সৌন্দর্য নিয়ে অাগেই শুনছিলাম। সাদা বরফ, নীল অাকাশ অার মাইনাস রেঞ্জের টেম্পারেচার- সে এক রোমাঞ্চকর অবস্থা। অার রাতের পরিষ্কার অাকাশের লক্ষ লক্ষ তারাগুলো অাপনার এতটাই সঙ্গী হবে যে মনে হবে তারা অাপনার জন্যই, তাকিয়ে অাছে অাপনার দিকে। পুরো ট্রেকেই অাপনার জন্য ছড়িয়ে ছিটিয়ে সৌন্দর্য ছড়িয়ে অাছেই।

১২৫০০ ফিট উচ্চতার কেদারকণ্ঠ চোখ দিয়ে যতবার দেখছি ততবেশী মুগ্ধ হয়েছি। বরফ-নীলিমার কথা এখনো চোখে ভাসে। রাতের হাজারো তারার অাকাশ অার মাইনাস ৮/১০ ডিগ্রীর তাপমাত্রা অার হাতে কফি, ভাবুন তো একবার?!

যেভাবে যাবেন: (বাজেট ট্যুরের জন্য) কলকাতা থেকে ট্রেন ধরে চলে যেতে হবে উত্তরখন্ডের রাজধানী দেরাদুন। সময় লাগবে ৩০ ঘন্টার মত। অর্থাৎ অাপনি কলকাতা থেকে যেদিন রাতে ট্রেনে উঠবেন দেরাদুন পৌঁছাবেন তার পরের দিনের পরের দিন সকালে।
দেরাদুন থেকে অাপনাকে যেতে হবে সাংক্রি। সাংক্রি যাওয়ার জন্য দেরাদুন থেকে একটাই বাস, সকাল ৮ টায়। সাংক্রি যাওয়ার এই রাস্তাটা অনেক অনেক সুন্দর। সাংক্রি ভিলেজটাই অলমোস্ট ২০০০ মিটার উপরে। অত উপর থেকে, পাহাড়ের গা ঘেষে অাপনি যখন নিচের নদী/ঘরবাড়ি দেখবেন তখন অাসলেই শিহরীত হবেন। সাংক্রি পৌছাতে সময় লাগবে ৮/৯ ঘন্টা। অর্থাৎ ঐদিন রাতে অাপনি সাংক্রি পৌছালেন। পরেরদিন থেকে অাপনি ট্রেক শুরু করবেন। সাংক্রি পৌছে হোটেল/কটেজ ভাড়া নিবেন। অামরা কটেজে ছিলাম কারণ সাশ্রয়ী! কটেজ থেকেই পরেরদিনের ট্রেকিং এর সরন্জামাদি ভাড়া নিতে পারবেন। গাইড, পোর্টার/খচ্চরও কটেজের মালিকের সাথে কথা বললে পেয়ে যাবেন।

ট্রেকের ১ম দিন: সাংক্রি থেকে কেদারকণ্ঠ মোটামুটি ৯ কি.মি.। পুরো পথটাই বরফাচ্ছন্ন। অনেকেই এই ট্রেকটা ৩/৪ দিনে করে। অামরা অবশ্য ২ দিনেই কমপ্লিট করেছি। সেক্ষেত্রে ১ম দিনে অামাদের কভার করতে হয় ৬ কি.মি. পর্যন্ত, অর্থাৎ বেজক্যাম্প পর্যন্ত। সকাল সকাল কটেজে নাস্তা করেই বের হয়ে গেলাম। কটেজের মালিকের সাথে কথা বলে গাইড,টেন্ট, স্যুট, স্টিক, ওয়াটারপ্রুফ জুতো, ম্যাটট্রেস,স্লিপিং ব্যাগ যাবতীয় যা দরকার তা নিয়েই বের হলাম। অার ঐদিন দুপুরে অার রাতে খাবার হিসেবে কটেজ থেকেই রুটি-সবজি নিয়ে নিলাম। বেজক্যাম্প যেতে ৪ কি.মি. এর মধ্যে লেক “Juda Ka Talaab”এর অবস্থান। লেকের সৌন্দর্য বড়ই মনোমুগ্ধকর। লেকের সমস্ত পানিই বরফ হয়ে গেছে অারকি!
লেক পার হয়ে বেজক্যাম্প পৌঁছতে একটু বেগ পেতে হল। এমনিতেই লাইফের প্রথম স্নো ট্রেক তার উপরে সব খাড়া অার ভেজা স্লোপ। বিকেল ৪ টা নাগাদ বেজক্যাম্পে পৌছালাম। মোটামুটি ৭ ঘন্টা সময় লাগল! বেজক্যাম্প পৌছে টেন্ট রেডি করলাম, হালকা নাস্তা করলাম, অার সূর্যাস্ত দেখতে দেখতে সময়টা কাটালাম। সন্ধ্যা রাতে খাওয়া দাওয়া সেরে অাকাশটা একটু উপভোগ করে দ্রুতই ঘুমিয়ে পড়লাম, পরের দিন কিনা অাবার ভোরে ট্রেক শুরু হবে তাই। রাতে বেজক্যাম্পে প্রচুর ঠান্ডা। অলমোস্ট মাইনাস ১০ ডিগ্রীর মত! স্লিপিং ব্যাগের মধ্যেও অতগুলো স্যুট,সোয়েটার পরেও ঠান্ডায় জমে যাওয়ার মত অবস্থা।

ট্রেকের ২য় দিন: ভোর ৪ টা। গাইড অামাদের উঠিয়ে দেওয়ার পর ৪:৩০ এর মধ্যেই ট্রেক শুরু করলাম। এক হাতে টর্চলাইট অারেকহাতে স্টিক নিয়ে শক্ত বরফের মধ্য দিয়ে যাচ্ছি। ৩ কি.মি. শুনে মনে হল যে বেশ সহজেই সামিটে উঠে যাব কারণ অলরেডি অাগেরদিন ৬ কি.মি. বেশ ভালভাবেই পার করে অাসছি। কিন্তু এই ৩ কি.মি. যে কি জিনিস! 😲 এত বড় বড় স্লোপ অার এত ডিস্টেন্সের। বার বার মনে হচ্ছিল এইতো চলে অাসলাম এইতো চলে অাসলাম কিন্তু কোথায় কি?! অলরেডি অামাদের গ্রুপের ২ জনের শ্বাসকষ্ট শুরু হয়ে গেছে, ওরা কোনোমতে চার হাত-পার ব্যাবহার করে, ইনহেলারের সহায়তা নিয়ে, অবশেষে সামিট দেখার সুযোগ পেল!
সামিট থেকে ব্যাক করার সময় বেজক্যাম্প হয়ে সরাসরি সাংক্রি’র কটেজে চলে অাসলাম। পুরো ৯ কি.মি. নামতে সময় লাগলো মোটামুটি ৬ ঘন্টা। পুরা পথটাই স্লাইড খেতে খেতে বেশ সুন্দরভাবে নামা যায় 😍
২য় দিনের খাবার বলতে অামাদের ছিল চকলেট, বিস্কুট, বাদাম, ফ্রুটস, খেজুর এরকম কিছু শুকনা খাবার যা অাগে থেকেই ব্যাগে নিয়েছিলাম।

খরচ: (রূপিতে)
কলকাতা- দেরাদুন (দুন এক্সপ্রেস) ১৪০০/person
দেরাদুন- সানক্রি ৩৩০/person
কটেজ ভাড়া(রাতের খাবারসহ)- ৪৫০/person

*ইন্সট্রুমেন্টস
জুতা-১০০/day
জ্যাকেট-৫০/day
স্লিপিং ব্যাগ-২০০/day
টেন্ট-১২০০/day
ম্যাট্রেস-১৫০/day
গাইড-৮০০/day
স্টিক- ২০/day

ক্যাম্প এনট্রি- ৭০০
সাংক্রি ব্যাক করার পরে পুনরায় কটেজ ভাড়া(রাতের খাবারসহ)- ৪৫০/person
সানক্রি-দেরাদুন ৩৫০/person
দেরাদুন-কলকাতা ১৪০০/person

অতএব মোটামুটি পার পার্সন বাংলাদেশি ১০ হাজার টাকায় বেশ ভালভাবেই অাপনি এই ট্রেকটা করতে পারবেন।

বি:দ্র:
১.কলকাতা-দেরাদুনের টিকিট অাগে থেকেই কেটে রাখুন, এটাতে ফরেন কোটাও নেই যে গিয়ে টিকিট কাটতে পারবেন। অামরা টিকিট পাই নি বলে অামাদের দুই দিন কলকাতা থাকতে হয়েছে সাথে টাকাও বেশী লেগেছে।

২. দেরাদুন থেকে সাংক্রি যাওয়ার বাস একটাই এবং তা সকাল ৮ টায়। এটা খেয়াল রাখা দরকার। অবশ্য এটা মিস হলে মোরি’র বাসে উঠতে পারেন তারপর ওখান থেকে সাংক্রি গেলেন। মোরি থেকে সাংক্রি ২৩ কি.মি.।

৩. কারো হাইটে শ্বাসকষ্টের সমস্য হলে অাগে থেকে ইনহেলার নিয়ে যেতে পারেন

৪.এই ট্রেকটা করার ভাল সময় নভেম্বর-মে, এরপর বরফ থাকে না।

ধন্যবাদ এত লম্বা পোস্টটি পড়ার জন্য, অাশা করি সব ছবিগুলো দেখবেন।

অার হ্যা ঘুরতে গিয়ে অবশ্যই অাপনার ব্যবহারকৃত উচ্ছিষ্ট ফেলে অাসবেন না, সুন্দর পরিবেশ সবসময় অারো সুন্দর করে রাখার চেষ্টা করুন। ধন্যবাদ

#হ্যাপি_ট্রাভেলেং
Image may contain: sky, snow, mountain, cloud, outdoor and nature

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 BangaliTimes.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com