বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০, ০৭:৩৬ পূর্বাহ্ন

তুষার বানর দর্শন

তুষার বানর দর্শন

তুষার বানর দর্শন

জাপানের টোকিও শহর থেকে প্রায়ই ২৫৮ কি:মি: দুরে
হংশু দ্বীপের ইয়োকোইয়ে নদীর উপত্যকায় একটি বিশেষ জায়গার নাম ‘নরক উপত্যকা’। জাপানি ভাষায় যাকে বলা হয় জিগোকুদানি।

ভূগর্ভস্থ উষ্ণ প্রস্রবণ থেকে ছোট ছোট ফাটল বেয়ে উঠে আসা জলীয় বাষ্প আর ফুটন্ত পানি দিয়ে সৃষ্টি হওয়া জলাধার থাকায় এখানকার তাপমাত্রা আশপাশের চেয়ে বেশি। তাই এমন নামকরণ। এই নরক উপত্যকা বা জিগোকুদানি আবার খাড়া পর্বতমালা আর ভয়ংকর ঠাণ্ডা বন দিয়ে ঘেরা। শীতকালীন ভারী তুষারপাতের কারণে বছরের প্রায় চার মাস পুরো এলাকা শুভ্র তুষারের চাদরে ঢাকা থাকে। আর এখানেই দেখা মেলে জাপানের বিখ্যাত স্নো মাংকি বা তুষার বানরদের।
জিগোকুদানি উপত্যকাটির অবস্থান সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৮৫০ মিটার উচ্চতায়। স্নো মাংকিদের জন্য বিখ্যাত বলে এখানে ১৯৬৪ সালে গড়ে তোলা হয়েছে জিগোকুদানি মাংকি পার্ক। শীতকালে প্রবল ঠাণ্ডার মধ্যে এখানকার বানর উষ্ণ পানির জলাধারে গোসল করে নিজেদের গরম রাখে। বানরগুলো তাদের মাথা পানির ওপরে তুলে মহা-আনন্দে গরম পানিতে গা ডুবিয়ে বসে থাকে।

বানরগুলোর কাজকর্ম এবং এদের গোসল করার ধরন বেশ মজার। এদের আবাস আশপাশের বনগুলোতে। এরা বনেই থাকে, খাবার সংগ্রহ করে। তবে গরম পানির আরামদায়ক আঁচে গা ভেজানোর জন্য এরা উষ্ণ প্রস্রবণগুলোতে ভিড় করে। শীতকালেই উষ্ণ প্রস্রবণগুলোতে এদের বেশি দেখা যায়। গরম ঋতুতে এদের বেশির ভাগই গরম পানিতে নামতে চায় না। তাই পার্কের কর্মচারীরা পানিতে খাবার ছুড়ে দেন। তখন খাবারের লোভে অনেক বানর ছুটে আসে। দর্শনার্থীরা খুব কাছ থেকেই বানরগুলো দেখতে পারে। আর মানুষ দেখে এ বানরগুলো অভ্যস্ত। অন্য বানরদের মতো এরাও সামাজিক জীবন যাপন করে, দল বেঁধেই এরা উষ্ণ প্রস্রবণে গোসল করতে আসে।
জিগোকুদানি মাংকি পার্ক জোসিনেত্সু-কোগেন ন্যাশনাল পার্কের একটি অংশ। সাধারণত ডিসেম্বর থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত এলাকাটি বরফে ঢাকা থাকে। এ সময় শত শত স্নো মাংকি উষ্ণ প্রস্রবণের গরম পানির ওম নিতে আসে। জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি মাস এখানে দর্শনার্থীদের আসার সবচেয়ে ভালো সময়। মাংকি পার্কটি বেশ বিখ্যাত হলেও দর্শনার্থীর সংখ্যা কম। কেননা এখানে পৌঁছতে হলে দুই কিলোমিটার দীর্ঘ জঙ্গলময়, বরফে ঢাকা খাড়া ও সরু পথ হেঁটে পাড়ি দিতে হয়। তবে তুষার বানরদের মজার কার্যকলাপ যে আনন্দ দেয় তাতে পথের সেই ক্লান্তি দূর হয়ে যায়। সেই ক্লান্তি দূর হয়ে যায়।

দর্শনের সময়: সকাল ৮:৩০- বিকাল ৫ টা
নবেম্ভর থেকে মার্চ সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৪ টা।
কিভাবে যাবেন:
টোকিও ইষ্টেশন থেকে বুলেট ট্রেন শিনকানসেন তে নাগানো ইষ্টেশন
ভাড়া ৭৫০০-১০০০০ জাপানিজ ইয়েন
সময়: ৪ ঘন্টা ৩০ মিনিট

Nagano থেকে Snow Monkey Park বাসে ৪৫ মিনিট
ভাড়া: ১৪০০ জাপানিজ ইয়েন।
সবচেয়ে ভালো হয় প্রাইভেট গাড়ী ।
গাড়ী ভাড়া পরবে ১০০০০-১৫০০০ জাপানিজ ইয়েন।
হাইওয়ে খরচ ৬০০০-৭০০০ জাপানিজ ইয়েন।
পার্ক প্রবেশ ফি জনপ্রতি ৫০০ জাপানিজ ইয়েন।

Snow monkey jigokudani, Nagano

যেখানে সেখানে ময়লা না ফেলে নিদিষ্ট স্থানে ময়লা ফেলি, বাংলাদেশ কে ভালবাসি।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 BangaliTimes.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com