রবিবার, ৩১ মে ২০২০, ০৭:৩০ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৭৬৮ জন করোনা শনাক্ত, মারাগেছেন আরও ২৮ জন 30TH MAY, 2020

সংবাদ শিরোনাম:
জ্বর সর্দি-কাশি প্রতিরোধে পাতে রাখুন কাঁচামরিচ আল-আকসা মসজিদের গ্র্যান্ড ইমামকে আটক করল ইসরাইল করোনার ভ্যাকসিন ‘প্রস্তুত’, ৯৯ শতাংশ কাজ করার নিশ্চয়তা চীনের লিবিয়া হ’ত্যা’কা’ন্ডের মূলহোতা বাংলাদেশী শামীম, তাকে হ’ত্যার প্রতিশোধ নিতে ২৬ হ’ত্যা’কা’ন্ড (বিস্তারিত) ফেসবুকে মাফ চেয়ে পোস্ট দেয়ার কিছুক্ষণ পরই সাংবাদিকের মৃত্যু করোনা চিকিৎসায় ডা. জাফরুল্লাহ’র উদ্যোগে এবার ‘প্লাজমা ব্যাংক’ দক্ষিণ কোরিয়ায় চালুর একদিন পরই বন্ধ আড়াই শতাধিক স্কুল লিবিয়ার কাছে ক্ষতিপূরণ চেয়েছে বাংলাদেশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী চালু হচ্ছে গণপরিবহন, বাড়ছে ৮০ শতাংশ ভাড়া সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৩৯তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ
গণপরিবহন বন্ধ, ভেঙে ভেঙেই বাড়ি যাচ্ছেন ঘরমুখো মানুষ

গণপরিবহন বন্ধ, ভেঙে ভেঙেই বাড়ি যাচ্ছেন ঘরমুখো মানুষ

গণপরিবহন বন্ধ, ভেঙে ভেঙেই বাড়ি যাচ্ছেন ঘরমুখো মানুষ

বিশ্ব মহামারি করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে গণপরিবহন বন্ধ রয়েছে। এরপরও আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে ঘরমুখো মানুষের নেমেছে বাড়ি ফেরার ঢল। ঢাকা, গাজীপুরসহ আশপাশের জেলা গুলো থেকে ইতোমধ্যেই বাড়িতে ফিরতে শুরু করেছেন মানুষ।

মঙ্গলবার (১৯ মে) সকালে ঢাকা টাঙ্গাইল বঙ্গবন্ধু সেতুমহাসড়কের তারটিয়া ও আশেকপুর বাইপাস এলাকায় দেখা গেছে ঘরমুখো মানুষের ভেঙে ভেঙে বাড়ি যাওয়ার প্রতিযোগিতা। এ সুযোগ নিয়ে আর বাড়তি টাকা আয়ের আশায় এই পরিবহন সুবিধা দিচ্ছেন চালকরা।

জানা যায়, উত্তরবঙ্গের ২৬টি জেলার ৯২টি রোডসহ ১২২ রোডের যানবাহন ঢাকা টাঙ্গাইল বঙ্গবন্ধুসেতু মহাসড়ক হয়ে এই বঙ্গবন্ধু সেতুর উপর দিয়ে পারাপার করে।

সরেজমিন দেখা গেছে, আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে আর গণপরিবহন বন্ধ থাকার সুযোগ নিয়ে আশেকপুর বাইপাস এলাকায় রীতিমত বসেছে সিএনজি আর ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সার স্ট্যান্ড। এ স্ট্যান্ডের পরিবহনগুলো ভোর থেকে রাত পর্যন্ত এলেঙ্গা আর ভূঞাপুর পর্যন্ত পৌছে দিচ্ছেন যাত্রী। এছাড়াও মির্জাপুর থেকে লেগুনা অথবা সিএনজিতেও এলেঙ্গা আর ভূঞাপুর পর্যন্ত যাতায়াত করছেন যাত্রীরা। এতে এ পরিবহন চালকদের যেমন বাড়তি আয় হচ্ছে টাকা, তেমনি যাত্রীদেরও পৌছানো হচ্ছে বাড়ি।

এ সময় কথা হয় গাজীপুর ও আব্দুল্লাহপুর থেকে রওনা দেয়া বগুড়ার যাত্রী মাইনুল ইসলাম, আল আমিন, কুড়িগ্রামের যাত্রী সবুজ মিয়া আর সিরাজগঞ্জের যাত্রী মমতাজ বেগম জানান, বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন তারা। ঈদকে সামনে রেখে আর অফিস থেকে ছুটি বাড়ি ফিরছেন তারা। তবে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় এভাবে ভেঙে ভেঙে বাড়ি যাচ্ছেন তারা। এতে তাদের বাড়তি কিছু টাকা খরচ আর সময় নষ্ট হওয়ার কথা স্বীকার করলেও পরিবার নিয়ে ঈদ করার জন্যই তাদের এই যাত্রা।

তবে এ যাত্রা পথে কিভাবে তারা সেতু পারাপার হচ্ছেন এমন প্রশ্নে জানান, ভূঞাপুর থেকে নৌ পথে সিরাজগঞ্জ পৌছে আবার এভাবেই তাদের পৌছাতে হবে বাড়ি। গণপরিবহনে তাদের যেখানে ভাড়া লাগতো সাড়ে তিনশ থেকে সাড়ে চারশ টাকা এখন সেখানে খরচ হবে আটশ থেকে এক হাজার টাকা।

লেগুনা চালক সোহেল মিয়া জানান, মির্জাপুর থেকে এলেঙ্গা পর্যন্ত জনপ্রতি দেড়শ টাকা ভাড়ায় পৌছে দিচ্ছেন তিনি। মির্জাপুর থেকে এলেঙ্গার ভাড়া ৫০টাকা তবে এরপরও কেন তারা এই অতিরিক্ত টাকা আদায় করছে এমন প্রশ্নে সে বলেন সড়কে পুলিশ আর মোবাইল কোর্টের ভয় নিয়ে তাদের মহাসড়কে চলতে হচ্ছে, এ কারণে তারা একটু বেশি ভাড়া নিচ্ছেন।

সিএনজি আর ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা চালক রফিক, কবিরসহ কয়েকজন বলেন, টাঙ্গাইল থেকে এলেঙ্গার ভাড়া জনপ্রতি ৪০ টাকা হলেও এখন তারা নিচ্ছেন ৫০ টাকা।

বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (টিআই) ইফতেখার রোকন বলেন, গণপরিবহন বন্ধ থাকা স্বত্তেও ঈদকে সামনে রেখে যাত্রী বেড়েছে এ মহাসড়কে। এ সুযোগে প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস আর কেই কেই অসুস্থতার দোহাই দিয়ে অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করেই ফিরছেন বাড়ি। সন্দেহজনক কিছু গাড়ী প্রবেশে বাঁধা দেয়া হলেও বেশির ভাগ গাড়ীই পার হচ্ছে সেতু। এছাড়া নদী পথ দেখার দায়িত্ব তাদের নয় আর ওই পথে কিভাবে যাত্রী পারাপার হচ্ছেন এ ব্যাপারে কিছুই জানেন না তিনি।

এ প্রসঙ্গে ভূঞাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রাশিদুল ইসলাম বলেন, নৌ চলাচল বন্ধে বঙ্গবন্ধু নৌ পুলিশ ফাঁড়ি আর গোবিন্দাসী পুলিশ ফাঁড়িকে তৎপর থাকতে বলা হয়েছে। এ পথে কোন ধরণের নৌ চলাচল করবেনা বলেও জানান তিনি।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *