শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:১১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
ঘুম থেকে তুলে ক্রসফায়ার দেন ওসি প্রদীপ, টাকাও নেন ১৮ লাখ (ভিডিও)

ঘুম থেকে তুলে ক্রসফায়ার দেন ওসি প্রদীপ, টাকাও নেন ১৮ লাখ (ভিডিও)

ঘুম থেকে তুলে ক্রসফায়ার দেন ওসি প্রদীপ, টাকাও নেন ১৮ লাখ (ভিডিও)

সাবেক মেজর সিনহা হত্যা মামলার আসামি টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশের ঘুষবাণিজ্যের হাতিয়ার ছিল কথিত বন্দুকযুদ্ধের নামে ক্রসফায়ার। টেকনাফের মেরিন ড্রাইভ সড়ককে কার্যত ‘ডেথ জোনে’ পরিণত করেন তিনি। আতঙ্কে রাতে এ সড়কে চলাচলে মারাত্মক ভীতির সঞ্চার হয় স্থানীয়দের মধ্যে।

অভিযোগ আছে, চাহিদা মতো টাকা না পেলেই বন্দুকযুদ্ধের নামে ক্রসফায়ার দিতেন তিনি।

সিনহা হত্যা ৭ দিন আগে পাশের উখিয়া থানার ইউপি মেম্বার বখতিয়ারকে ধরে নিয়ে যান ওসি প্রদীপ। পরে তাকে ক্রসফায়ার দিয়ে বন্দুকযুদ্ধে নাটক সাজিয়ে মামলা দেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ২২ জুলাইয় মধ্যরাতে উখিয়ার কুতুপালং গ্রামের বাসিন্দা ইউপি সদস্য বখতিয়ার আহমেদের বাড়িতে টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও উখিয়া থানার ওসি মর্জিনা আক্তারের নেতৃত্বে অভিযান চালানো হয়। পরিবারের সদস্যরা যখন ঘুমাচ্ছিলেন ঠিক তখন পুলিশের চিৎকারে ঘুম ভাঙে তাদের। অভিযানে বখতিয়ার মেম্বারকে তার বাড়ির শয়নকক্ষ থেকে তুলে নেয়ার সময় বাধা নেয় পরিবারের সদস্যরা। কিন্তু ‘তার সঙ্গে একটু কথা আছে’ বলে তুলে নিয়ে যায় পুলিশ। এরপর খোঁজ খবর করে বখতিয়ার মেম্বারের হদিস পাননি স্বজনরা।

২৩ জুলাই সন্ধ্যার পর উখিয়ার বখতিয়ার মেম্বারের বাড়িতে আবারও আসেন টেকনাফের ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও উখিয়া থানার ওসি মর্জিনা আক্তার। এ দফায় ভেঙে ফেলা হয় ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা। তারপর চালানো হয় তল্লাশি। ওই রাতেই টেকনাফের হ্নিলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দু’জনের মৃত্যু খবর পায় বখতিয়ারের পরিবার। তারা জানতে পারে, বখতিয়ার মেম্বার ও মোহাম্মদ তাহের নামের দু’জনের মৃত্যু হয়েছে ‘বন্দুকযুদ্ধে’। ভোরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে আসে তাদের লাশ।

এর আগে ২৩ তারিখ রাতেই ১৫ জনকে আসামি করে একটি মাদক মামলা দায়ের করা হয় টেকনাফ থানায়। তারপর অস্ত্র মামলাসহ আরও একটি মামলা হয় বখতিয়ার মেম্বারের তিন ছেলের বিরুদ্ধে।

বখতিয়ার মেম্বারের ছেলের বউয়ের অভিযোগ, সেদিন সন্ধ্যায় পরের দফায় বাসা থেকে নিয়ে যাওয়া জিনিষগুলোর অনেক কিছুই সিজার লিস্ট-এ নাই। তিনি বলছেন, ওসি প্রদীপ দাশ নেয় ১৮ লাখ টাকা। ২ লাখ টাকা নেয় উখিয়া থানার ওসি মর্জিনা।

মানব পাচার ও রোহিঙ্গাদের আশ্রয়দাতা হিসেবে তালিকায় নাম ছিল ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত উখিয়ার বখতিয়ার মেম্বারের। তবে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের তালিকায় ছিল না তার নাম।

গুরুত্বপূর্ণ সব সংবাদ  পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

https://www.facebook.com/BangaliTimesofficel

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *