মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০৮:৫৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
রায়হান হ’ত্যা: ভ’য়’ঙ্ক’র সেই রাতের ব’র্ণ’না দি’লেন প্র’ত্য’ক্ষ’দ’র্শী সিএনজি চালক

রায়হান হ’ত্যা: ভ’য়’ঙ্ক’র সেই রাতের ব’র্ণ’না দি’লেন প্র’ত্য’ক্ষ’দ’র্শী সিএনজি চালক

রায়হান হত্যা: ভয়ঙ্কর সেই রাতের বর্ণনা দিলেন প্রত্যক্ষদর্শী সিএনজি চালক

সিলেটের বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁ’ড়িতে ‘নি’র্যা’ত’নে’র ফলে’ মা’রা যা’ওয়া নগরীর আখালিয়ার যুবক রায়হান আহমদের (৪০) সঙ্গে সেই রাতে ঘ’টে যা’ওয়া ভ’য়’ঙ্ক’র ঘ’ট’না’র ব’র্ণনা দি’লেন প্র’ত্যক্ষ’দ’র্শী এক সিএনজি অটোরিকশা চালক। ওই চালক ও তাঁর আরেক সঙ্গীর দুটি সিএনজি অটোরিকশাতেই সেই রাতে বন্দরবাজার ফাঁ’ড়ি’র দুটি পু’লিশ টিম ট’হ’ল দেয়। এর মধ্যে একটি অটোরিকশাতেই রায়হানকে ফাঁ’ড়িতে নি’য়ে আসে পু’লিশ।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

নাম প্র’কাশে অ’নিচ্ছু’ক সে’ই অটোরিকশা চালক সিলেটভিত্তিক একটি ইউটিউব চ্যানেলকে দেয়া সা’ক্ষা’ৎকা’রে বলেন, শনিবার দিবাগত (১২ অক্টোবর) রাতে সিলেট নগরীর কাষ্টঘর এলাকার একটি সুইপার কক্ষ থেকে রায়হানকে বে’র ক’রে নি’য়ে আসে পু’লিশ। এর আগে নগরীর মাশরাফিয়া রেস্টুরেন্টের সামনে অ’জ্ঞা’ত দুইজন লোক পু’লি’শ’কে এসে খবর দে’য়, কাষ্টঘরের গলিতে একটি ছি’নতা’ই’য়ে’র ঘ’ট’না ঘ’টেছে।

সেই অটোরিকশা চালক জানান, পু’লিশ গিয়ে একটি সুইপারের ক’ক্ষ থে’কে রায়হানকে ডে’কে বে’র ক’রে। তখন সে’খানে কোনো ছি’নতা’ই বা রায়হানকে গ’ণধো’লা’ই’য়ের ঘ’টনা ঘ’টতে দে’খেন’নি অটোরিকশা চালক। ওই গলি থেকে রায়হানকে বে’র ক’রে দ্বিতীয় (ওই চালকের সঙ্গীর) অটোরিকশাযোগে ফাঁ’ড়িতে নি’য়ে আ’সে পু’লিশ। তখন সু’স্থ শ’রীরেই ছিলেন রায়হান। এসময় রায়হান পু’লিশের ত’র্কে লি’প্ত হন এবং বলেন- আমি কোনো ছি’ন’তা’ইকা’রী বা অ’প’রা’ধী ন’ই।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

রায়হানকে পু’লিশ ফাঁ’ড়ির ভে’তরে নি’য়ে যাওয়ার পর দুই অটোরিকশা চালক ফাঁ’ড়ির বা’ইরে অ’পেক্ষা ক’রতে থা’কেন। প’রে সকালে রায়হানকে গু’রু’ত’র অ’সু’স্থ অ’ব’স্থা”য় ওই দুই চালকের মধ্যে একজনের অটোরিকশাতে করে ওসমানী হা’সপাতালে নিয়ে যায় পু’লিশ।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

অটোরিকশা চালক আরও জানান, হা’সপাতালে নে’য়ার প’র রায়হানের অ’ব’স্থা আরও খা’রাপ হয় এবং তাকে অক্সিজেন দেয়া হয়। এর আগে ফাঁড়ি থেকে রায়হানকে বে’র ক’রার সময় তার হাটুর নিচে ও হাতের আ’ঙ্গুলে আ’ঘা’তের চি’হ্ন দেখেন ওই চালক। এসময় চালক দুই পুলিশ সদস্যকে বলতে শুনেন- ‘এমন নি’র্ম’ম’ভা’বে কে’উ কা’উকে মা’রে? স্যার আ’দেশ দি’য়ে’ছে’ন ব’লেই মা’র’তে হলো।’

অটোরিকশা চালক বলেন, সেই রাতে এস.আই আকবর ফাঁড়িতেই ছি’লেন এবং তার নি’র্দে’শে’ই রায়হানকে মা’র’ধ’র ক’রা হ’য়। আকবর নিজের হা’তেও নি’র্ম’মভা’বে রায়হানকে নি’র্যা’ত’ন ক’রে’ছেন বলে ওই অটোরিকশা চালক জা’নান।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

এদিকে সূত্র জানায়, বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁ’ড়িতে সু’স্থ ও স্বা’ভা’বিক অ’বস্থায় রায়হানকে নি’য়ে আ’সা ও নি’র্যা’ত’নে’র পর হা’সপাতালে নে’ওয়ার দৃ’শ্যটি পু’লিশ সুপার কার্যালয়ের সিসি ফুটেজে ধ’রা প’ড়ে। সেখানে হা’সপাতালের দুই তলায় নি’য়ে এক্স-রে ক’রার পর ক্যা’জুয়ালিটি বিভাগে ভর্তি ক’রেন। এরপর রায়হানের অ’বস্থা গু’রু’ত’র হলে আ’ইসিইউতে নে’ও’য়া’র ২০ মিনিট পর ভোর ৬টার দিকে দায়িত্বরত চিকিৎসক রায়হানকে মৃ’ত ঘো’ষণা ক’রেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

বিষয়টি ফোনে এসআই আকবরকে জানান রায়হানকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া পু’লিশ সদস্য। পরে এসআই আকবর সঙ্গে কনস্টেবল হারুনকে নিয়ে হা’সপাতালে যা’ন। হা’সপাতাল থে’কে ফাঁ’ড়িতে ফি’রে আ’সার প’র সকাল ৮টার দিকে সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ মু’ছে দি’য়ে (ডিলিট) বে’রি’য়ে প’ড়েন। আর ফাঁ’ড়ি থেকে বে’রিয়ে লা’পা’ত্তা হ’য়ে যা’ন আ’কবর। এর পর থে’কেই তার মোবাইলও ব’ন্ধ পাও’য়া যা’য়।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

প্র’ত্যক্ষ’দ’র্শী এক পু’লিশ সদস্য বলেন, এসআই আকবর বাঁ’শের লা’ঠি দি’য়ে অ’মা’নবি’ক নি’র্যা’ত’ন ক’রে’ছে’ন। তাদের বে’পো’রো’য়া নি’র্যা’ত’নে’র কারণে জ’ল’জ্যা’ন্ত মানুষটির আ’ঙুলের নখ উ’প’ড়ে যা’য়, হাত ও পায়ের হাঁ’ড় ভে’ঙে যা’য়। রায়হানকে অ’মা’ন’বি’ক নি’র্যা’ত’নের বিষয়টি ওসি সৌমেনকে জা’নান তি’নি। একই ব’ক্ত’ব্য তিনি পু’লিশ কমিশনারের সা’ম’নেও দি’য়েছেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

প্র’ত্য’ক্ষ’দ’র্শী ওই পু’লিশ সদস্য বলেন, ‘চারজনকে সা’ম’য়ি’ক ব’র’খা’স্ত ও তিন জ’নকে প্র’ত্যা’হা’র ক’রা হলেও আমরা ছয় জনই পুলিশ লাইনে আ’ছি। কিন্তু এসআই আকবর নে’ই, তিনি রোববার সকাল থে’কেই লা’পা’ত্তা হ’য়ে যা’ন। পুলি’শ লাইনে ক’ড়া প্র”হরা’য় রা’খা হ’য়েছে আ’মাদের।

গুরুত্বপূর্ণ সব সংবাদ  পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

https://www.facebook.com/BangaliTimesofficel

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *