মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:৪২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশি মুসলিমদের ভারত থেকে তাড়াবো ! আলেমদের কটু কথা বলবেন না: জাফরুল্লাহ ‘বিয়ের জন্য অনশন’ প্ল্যাকার্ড হাতে প্রেমিকের বাড়ির সামনে তরুণী মায়ের মৃত্যুতে প্যারোলে মুক্তির পর ফের কারাগারে ইরফান সেলিম ভাত খে’তে এসে ভা’বি’কে ধ.’ণ, এমন স’ময় উপ’স্থিত স্বামী! আবর্জনার স্তূপ থেকে কুড়িয়ে পাওয়া মেয়েটি তার সবজি বিক্রেতা বাবার এত বড় প্রতিদান দিল এক কেজি শ্বেত চন্দন কাঠের দাম ১৫ হাজার টাকা, তাই চাষ করুন শ্বেত চন্দন উত্তেজনার মধ্যে আসছে মার্কিন বিমানবাহী রণতরী ! ইসরায়েলই ইরানি পরমাণু বিজ্ঞানী ফখরিজাদেহকে হত্যা করেছে : হাসান রুহানি একের পরে এক ভারতের সেনা নিহত ;পাকিস্তানকে কড়া হুঁশিয়ারি ।
৬ মণ কয়েন নিয়ে বিপাকে খবির, মাথায় হাত

৬ মণ কয়েন নিয়ে বিপাকে খবির, মাথায় হাত

মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী খাইরুল ইসলাম খবির (৪৫) প্রায় ছয় মণ ওজনের ৬০ হাজার টাকার ধাতব মুদ্রা (কয়েন) নিয়ে বিপাকে পড়েছেন।

১০ বছর ধরে ২৫ পয়সা, ৫০ পয়সা, ১ টাকা ও ২ টাকার ধাতব মুদ্রা জমিয়েছেন তিনি। এ সব মুদ্রা সরকার বাতিল না করলেও খরিদ্দাররা নিতে চান না। কার্যত অচল এই বিপুল পরিমাণ কয়েন এখন তিনি কী করবেন বুঝতে পারছেন না।

খবিরের বাড়ি উপজেলা সদরের জাঙ্গালিয়া গ্রামে। তিনি সবজি ব্যবসায়ী। খবির জানান, তিনি ২৫ বছর ধরে উপজেলা সদর বাজারে সবজির ব্যবসা করছেন। গত ১০ বছর তিনি কয়েনগুলো অনিচ্ছা সত্ত্বেও জমিয়েছেন।

হিসাব করে দেখা গেছে কয়েনের ওজন প্রায় ৬ মণ এবং এর অর্থমূল্য ৬০ হাজার টাকার বেশি। এক সময় ক্রেতারা সবজির দাম হিসেবে তাকে কয়েন দিয়েছেন, তিনিও নিয়েছেন এবং ধীরে ধীরে সেগুলো জমিয়েছেন। তখন ভাবতে পারেননি কয়েনগুলো আর চলবে না।

খবির আরো জানান, অনেক দরিদ্র মানুষ কয়েনের বিনিময়ে তার কাছ থেকে সবজি কিনেছেন। তিনি মুখের উপর তাদের না বলতে পারেননি। আবার অনেক ভিক্ষুক তাকে কয়েন দিয়ে টাকা নিয়েছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, খবিরের ছোট্ট বসতঘরের মেঝেজুড়ে প্লাস্টিকের চারটি বালতি আর দুই বস্তা বোঝাই শুধু কয়েন। একেকটি পাত্রের ওজন এক মণের ওপরে। এক সময় কয়েনগুলো বাজারে রাখলেও এখন বাড়িতে এনে রেখেছেন খবির। যদিও অনেক জায়গায় ঘুরেও তিনি কয়েনগুলো চালাতে পারেননি। কোনো ব্যাংক কয়েন নিতে চায়নি। আক্ষেপ করে খবির বলেন, তার ব্যবসার মোট পুঁজির তিন ভাগের দুই ভাগ কয়েনের মধ্যে চলে গেছে।

মহম্মদপুর বাজার বণিক সমিতির সভাপতি মোফাজ্জেল হোসেন মোল্যার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তিনি খবিরের কয়েন নিয়ে বিপাকে পড়ার বিষয়টি জানেন। কিন্তু কী করবেন? লেনদেনে ধাতব মূদ্রার ব্যবহার নেই বললেই চলে।

মাগুরা সোনালী ব্যাংকের সহকারী জেনারেল ম্যানেজার (এজিএম) মো. রশিদুল ইসলাম জানান, বিষয়টি তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরে আনবেন।

গুরুত্বপূর্ণ সব সংবাদ  পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

https://www.facebook.com/BangaliTimesofficel

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *