বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ০৮:০৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
বাসর রাতে এক নারীর বি’ভীষি’কা’ময় মি;লনের অ’ভিজ্ঞ’তা আমি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে কিভাবে কাজ করব তা অ’পু বিশ্বা’স দেখে নেবে: বুবলী ইসলামকে ভালোবেসে মুসলিম হলেন তামিল অভিনেত্রী তুরস্কে মাটির নিচে প্রায় ২৮০ ফুট গভীর, ১৮ তলা শহর বোরকা কিনে দেওয়ার কথা বলে হোটেলে কলেজছাত্রীকে ধ’র্ষ’ণ জেনে নিন! শা’রীরিক মি’লন প্রতিদিন করলে কি হয়? ভালো ফলাফলের লো’ভ দে’খিয়ে ছাত্রদের সাথে শা’রীরি’ক স’ম্পর্ক ক’রতেন ‘শিক্ষিকা’ (ভিডিও)!! কোরআন ও হজরত মোহাম্মদ (সা.)-এর নির্দেশনা অনুযায়ী দেশ চলবেঃ নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ফজরের নামাজ পড়ানোর সময় ইমামের মৃ’ত্যু ফ্রে’শ ভা’র্জি’ন ছেলেকে বিয়ে করতে চান অপু বিশ্বাস,
যেভাবে ২৩ বছরের শ্যালিকাকে ৫০০ কোটি টাকার মালিক বানিয়েছিলেন সাংসদ দুলাভাই

যেভাবে ২৩ বছরের শ্যালিকাকে ৫০০ কোটি টাকার মালিক বানিয়েছিলেন সাংসদ দুলাভাই

২৩ বছরের শ্যালিকাকে ৫০০ কোটি টাকার মালিক বানিয়েছিলেন সাংসদ দুলাভাই

বাবা ছিলেন দিনমজুর আর তা করেই সংসারে কোনো রকম খাবার জোটাতে পারতেন কিংবা কখনও বা পারতেন না। অর্থাভাবে লেখাপড়াও করতে পারেননি। সেই দারিদ্রের ক’/ষাঘা’তে জ’র্জ’রিত পরিবারের সন্তান জেসমিন প্রধান এখন অর্থ-প্রতিপত্তিতে বি’ত্তশালী। প্রাসাদসম বাড়ি থেকে শুরু করে বিলাসবহুল দামি গাড়ি, আলিশান ফ্ল্যাট সবকিছু রয়েছে তার।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

মাত্র বছর সাতেকের ব্যাবধান আর এই অল্প সময়ের মাঝে তিনি হয়ে গেলেন ৫০০ কোটি টাকার মালিক। সবগুলো নয়, মাত্র পাঁচটি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে রয়েছে ১৪৮ কোটি ৪২ লাখ টাকা, এমন ধরনের চা’ঞ্চ’/ল্যকর তথ্য পেয়েছে দুর্নী’/তি দ’মন কমিশন (দুদক)। কিন্তু অবাক করা বিষয় এই ২৩ বছর বয়সী জেসমিনের নেই কোনো নিজস্ব আয়ের উৎস।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

দুদকের অনুসন্ধানে উঠে এসেছে, লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য কাজী শহিদ ইসলাম পাপুলের মানবপা’/চারের টাকায় শ্যালিকা জেসমিন প্রধান এখন সম্পদশালী। কুয়েতে মানবপাচা’/রের হোতা পাপুল অর্থ ও মানবপা’/চারের মাধ্যমে হাতিয়ে নেওয়া অর্থ আড়াল করতে শ্যালিকার অ্যাকাউন্টে রাখেন। শুধু তা-ই নয়, অ’বৈ’/ধ পথে অর্জিত বিপুল অর্থ বৈধ হিসাবে দেখাতে শ্যালিকা জেসমিনের মালিকানায় ’লিলাবালি’ নামের একটি কাগুজে প্রতিষ্ঠানও গড়ে তোলেন এমপি পাপুল।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

ওই প্রতিষ্ঠানের আ’ড়ালে জেসমিন প্রধানের পাঁচটি ব্যাংক হিসেবের মাধ্যমে ২০১২ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত পা’/চার করা হয় ১৪৮ কোটি টাকা। এই পরিমাণ টাকা হস্তান্তর, রূপান্তর ও স্থানান্তরের মাধ্যমে মানি লন্ডারিংয়ের অপ’/রাধে এমপি পাপুল, তাঁর স্ত্রী ও সন্তান এবং শ্যালিকার বি’রু’/দ্ধে মা’/ম’লার অনুমোদন দিয়েছে দুদক।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

দুদকের তদ’ন্তসংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা বলেন, খুবই দরিদ্র পরিবারের সন্তান জেসমিন প্রধান। বড় বোন সেলিনা ইসলামের বিয়ে হয় কুয়েতপ্রবাসী কাজী শহিদ ইসলাম পাপুলের সঙ্গে। পাপুল মানবপা’/চারের মাধ্যমে অর্জিত টাকা শ্যালিকা জেসমিন প্রধানের অ্যাকাউন্টে এবং নামে-বেনামে কোটি কোটি টাকার সম্পদ গড়ে তোলেন। পাঁচটি অ্যাকাউন্টে ১৪৮ কোটি টাকার এফডিআরসহ জেসমিন এখন প্রায় ৫০০ কোটি টাকার মালিক।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

অনুসন্ধান প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, বিভিন্ন ব্যাংকে জেসমিনের প্রায় ৪৪টি হিসাব পাওয়া গেছে। একটি ব্যাংকেই তাঁর ৩৪টি এফডিআর হিসাব রয়েছে। এফডিআর হিসাবের দুই কোটি ৩১ লাখ ৩৭ হাজার ৭৩৭.৫৩ টাকার কোনো উৎস জেসমিন দেখাতে পারেননি। সে কারণে অবৈ’/ধ সম্পদের অভি’যোগে তাঁকে আরো মা’/ম’লার মুখোমুখি হতে হচ্ছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

সূত্র জানায়, অ’/বৈধ উপায়ে অর্জিত জেসমিন প্রধানের নিজ নামে ২০টি এফডিআরে এক কোটি টাকা, বোন সেলিনা ইসলামের নামে ২৯৫টি এফডিআরে ২০ কোটি ৮৬ লাখ টাকা, বোনজামাই শহিদ ইসলাম পাপুলের নামে ২৩টি এফডিআরে দুই কোটি ১৮ লাখ টাকা পায় দুদক।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

এ ছাড়া পাপুলের মেয়ে ওয়াফা ইসলামের নামে ৪১টি এফডিআরে দুই কোটি ২৯ লাখ টাকাসহ মোট ২৬ কোটি ৩৪ লাখ টাকা জেসমিন প্রধানের একটি ব্যাংকের হিসাবে ল’/গ্নি করে ২৫ কোটি ২৩ লাখ টাকার ওভার ড্রাফট সুবিধা গ্রহণের প্রমাণ মেলে। সব মিলে বিভিন্ন হিসাবের মাধ্যমে পা’/চার হয়েছে ১৪৮ কোটি টাকা।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

এদিকে লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য কাজী শহিদ ইসলাম পাপুল, তাঁর স্ত্রী এমপি সেলিনা ইসলাম, শ্যালিকা জেসমিন প্রধান ও মেয়ে ওয়াফা ইসলামের বি’/রু’দ্ধে মানি লন্ডারিং আইনে মা’/ম’লার অনুমোদন দিয়েছে দুদক। গতকাল মঙ্গলবার দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে এই অনুমোদন দেওয়া হয়। শিগগিরই সংস্থাটির অনুসন্ধান কর্মকর্তা উপপরিচালক মো. সালাহউদ্দিন বাদী হয়ে মা’/ম’লাটি করবেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

বিষয়টি নিয়ে এর আগে তেমন কিছু জানা না গেলেও, পরবর্তীতে চাঞ্চ’/ল্যের সৃষ্টি হয়। তবে পাপুল কুয়েতে গ্রে’/ফ’তার হওয়ার পর এই ধরনের তথ্য সামনে আসতে থাকে। তবে কীভাবে তার ব্যাংক হিসাবে এই বিপুল পরিমান অর্থ এসেছে সে বিষয়ে প্রাতিষ্ঠানিক তথ্য প্রমান এখনও প্রকাশ করেনি। তবে এই বিপুল অর্থ যে জেসমিনের নয় সেটা ষ্পষ্ট দূদকের নিকট। প্রকৃতপক্ষে, নিজের নামে ঐ বিপুল অর্থ নিজ ব্যাংক হিসাবে না রেখে শ্যালিকার নামে রেখেছেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারনা করছেন।

গুরুত্বপূর্ণ সব সংবাদ  পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

https://www.facebook.com/BangaliTimesofficel

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *