শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ০২:৩৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
দী’র্ঘ ২০ মি’নিটের ভি’ডিও ক্লি’পটি ছ’ড়িয়ে প’ড়ে’ছে হাসপাতালের ডাক্তার-নার্স এবং ক’র্মকর্তা-ক’র্মচারী’দে’র হাতে হাতে দাদা-নাতনির প্রে’ম, বিয়ে না হ’ওয়ায়… বিবাহিত অথবা অবিবাহিত সকলের পড়া উচিৎ- এক করুণ কাহিনী ফুলশ’য্যার রাতের গল্পটি পুরোটা প’ড়লে আপনার চোখের জল ধ’রে রা’খতে পা’রবেন না কুকর্মের নথি জাতিসংঘে তুলে ভারতকে সতর্ক করল পাকিস্তান বাংলাদেশ-ভারত-পাকিস্তানের একক রাষ্ট্র হওয়া জরুরি! ভারতে থেকে আসামকে বিচ্ছিন্ন করতে উলফা গেরিলাদের প্রশিক্ষণ পাকিস্তানে বাবরি মসজিদের জায়গায় রাম মন্দিরের পর এবার রাম বিমানবন্দর জীবনে কোটি টাকার মালিক হতে চাইলে এই ৪টি ব্যবসার কোন বিকল্প নেই ছেলের বেতন এক কোটি টাকা, শুনে অঝোরে কাঁদলেন ঝালাই মিস্ত্রি বাবা
নিজের কিডনি দিয়ে স্বামীকে বাঁচালেন স্ত্রী

নিজের কিডনি দিয়ে স্বামীকে বাঁচালেন স্ত্রী

নিজের কিডনি দিয়ে স্বামীকে বাঁচালেন স্ত্রী

প্রায় তিন বছর আগে বিয়ে হয় সেতু-রাশিদুলের। বেশ ভালই চলছিলো তাদের সংসার। তবে ৩ মাস আগে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন রাশিদুল ইসলাম। তাকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে পরীক্ষা শেষে ডাক্তাররা জানায় রাশিদুলের দুটি কিডনিই বিকল হয়ে গেছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

ডাক্তাররা পরামর্শ দেন দ্রুত কিডনি প্রতিস্থাপনের কিন্ত নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবার হওয়ায় বাইরে থেকে কিডনি নেওয়ার সামর্থ্য তাদের ছিলো না। তাই মৃত্যুপথযাত্রী স্বামীকে বাঁচাতে নিজের কিডনি দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন স্ত্রী সেতু খাতুন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

সেতু ও রাশিদের পরিবারসূত্রে জানা যায় সাড়ে তিন বছর আগে পারিবারিকভাবে ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার হরিশপুর গ্রামের রাশিদুল ইসলামের সাথে বিয়ে হয় কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হাতিভাঙ্গা গ্রামের হবিরর রহমানের মেয়ে সেতু খানমের। সেতুর স্বামী রাশিদুল একজন আনসার সদস্য। সেতু-রাশিদুল দম্পতির ১টি মেয়ে আছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

রাশিদুল অসুস্থ হওয়ার পর তার স্ত্রী একটি কিডনি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় এবং গত ১২ নভেম্বর রাজধানীর শ্যামলী ৩নং সড়কের সিকেডি কিডনি হাসপাতালে তাদের অপারেশন করা হয়। বর্তমানে স্বামী ও স্ত্রী দুইজনই সুস্থ আছে। রাশিদুল ইসলাম আইসিইউতে আর স্ত্রী সেতু জেনারেল বেডে আছেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

এ বিষয়ে সেতু বলপন, “আমার স্বামী যদি মারা যায় তাহলে আমি কাকে নিয়ে বাঁচব। তাই স্বামীকে কিডনি দিয়েছি। দুইজন একটি করে যতদিন আল্লাহ বাঁচিয়ে রাখেন ততদিন বেঁচে থাকবো”

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

এদিকে ভালোবাসার এমন অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করে ফেসবুকসহ স্যােশাল মিডিয়াতে প্রসংশায় ভাসছেন সেতু খাতুন। সেতুর মা নুরনাহার বেগম বলেন, তার মেয়ে তার জামাইয়ের জন্য যা করেছে তাতে তারা খুশি। এসময় তিনি তার মেয়ে জামাইয়ের জন্য সকলের নিকট দোয়া কামনা করেছেন।

গুরুত্বপূর্ণ সব সংবাদ  পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

https://www.facebook.com/BangaliTimesofficel

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *