সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:০৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
মাত্র ৯০০০ টাকা কেজি দরে ভারতে বিক্রি হচ্ছে ‘সোনার মিষ্টি পৃথিবীর অন্যতম বড় শক্তিতে পরিণত হতে যাচ্ছে তুরস্ক! ভাস্কর্য বিতর্কের মধ্যেই অবশেষে নির্মিত হচ্ছে ‘আল্লাহু স্তম্ভ’! ক্ষমতা ছেড়েও রক্ষা নেই প্রতিশোধ অনিবার্য: ট্রাম্পকে খামেনির হুঁশিয়ারি! সর্বাত্মক চেষ্টা করেও ইরানকে ঠেকাতে পারেননি ট্রাম্প ! মার্কিন নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করেই রাশিয়ায় সেনা পাঠাচ্ছে ভারত ! ইসরাইলের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে সফল ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালায় পাকিস্তান! বন্ধু ট্রাম্প নাই ; বাধ্য হয়েই কি ইরানের সাথে সম্পর্কে যাচ্ছে সৌদি ! এক দিনে মার্কিন সেনাবহরে পাঁচ হামলা! চিংড়ি মাছের গায়ে ‘আল্লাহু’ সদৃশ লেখা, দেখতে ভিড় করছেন শত শত মানুষ
টাকার বিপরীতে প্রতিবেশীদের মুদ্রার মান কত?

টাকার বিপরীতে প্রতিবেশীদের মুদ্রার মান কত?

টাকার বিপরীতে প্রতিবেশীদের মুদ্রার মান কত?

কোনো দেশের মুদ্রা অতিমূল্যায়িত হলে প্রতিযোগীদের তুলনায় বেশি দামে কিনতে হয়। এছাড়া দেশে উৎপাদিত একই পণ্যের তুলনায় কম দাম হয় বিদেশি পণ্যের। ফলে মূল্যের ভিত্তিতে রফতানির প্রতিযোগিতার সক্ষমতা কমে আর আমদানির সক্ষমতা বাড়ে। টাকার বিনিময় হার অতিমূল্যায়িত হলে রফতানির বাজার সংকুচিত আর আমদানি উৎসাহিত হয়। ফলে বাণিজ্য ঘাটতি বেড়ে যায়।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) হিসাব মতে, ২০১৮ এবং ২০১৯ সালে টাকা ৯ দশমিক ৫ শতাংশ প্রকৃত অতিমূল্যায়িত হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাবও বলে যে, টাকার প্রকৃত মূল্য ২০১৫-১৬ ভিত্তি বছর অনুযায়ী রাখতে হলে বর্তমানে মুদ্রা বিনিময় হার প্রতি ডলারে ৯৩ টাকা হওয়ার কথা, যা কিনা এ বছরের ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে ৮৪ দশমিক ৯ টাকা ছিল আন্তঃব্যাংক বাজারে। অর্থাৎ ২০১৫-১৬ ভিত্তি বছরের প্রকৃত মূল্যের তুলনায় প্রতি ডলারে মুদ্রা বিনিময় হার প্রায় ৮ টাকা অতিমূল্যায়িত হয়।

মুদ্রার মান নির্ণয়ের ক্ষেত্রে রিয়েল ইফেকটিভ এক্সচেঞ্জ রেট যাচাই করা হয়। আমেরিকা থেকে যে পণ্য কিনতে ১০০ ডলার লাগে বাংলাদেশি মুদ্রায় সেটি কিনতে লাগবে ৮ হাজার ৫০০  (১ ডলার সমান ৮৫ টাকা ধরে) টাকা। আর যদি হয় ৮০ টাকা হয়, তাহলে লাগবে ৮ হাজার টাকা।

কাজেই পণ্যটি কিনতে গেলে কত খরচ হবে, তা দুটি মূল্যের ওপর নির্ভর করছে। আমেরিকার বাজারে পণ্যটির দাম (১০০ ডলার) এবং ডলারের বিপরীতে টাকার বিনিময় হার। বিদেশি ক্রেতারা বাংলাদেশি পণ্য কিনতে চাইলে তাদেরও দুটি মূল্য বিবেচনায় আনতে হবে। বাংলাদেশের বাজারে পণ্যটির দাম এবং ডলারের বিপরীতে টাকার বিনিময় হার। এ দুই মূল্যের তথ্য মিলিয়ে যে সূচক তৈরি করা হয়, তার নাম রিয়েল ইফেকটিভ এক্সচেঞ্জ রেট ইনডেক্স।

শনিবর (০৫ ডিসেম্বর) আন্তর্জাতিক বাজার যাচাই করে দেখা যায়, এক টাকার বিপরীতে মার্কিন ডলারের মূল্য ৮৪ টাকা ৬২ পয়সা। সর্বশেষ ৩০ দিনে টাকার বিপরীতে ডলারের সর্বোচ্চ মূল্য ছিল ৮৪ টাকা ৮৬ পয়সা এবং সর্বনিম্ন ৮৪ টাকা ৬২ পয়সা পর্যন্ত ওঠা-নামা করে।

একই সময়ে পাকিস্তানের মুদ্রা মান বাংলাদেশের তুলনায় প্রায় অর্ধেক। এক টাকার বিপরিতে পাকিস্তানি রুপির মূল্য ৫৩ পয়সা। অর্থাৎ পাকিস্তানি ২ রুপি সমমূল্যের একটি পণ্য কিনতে বাংলাদেশি এক টাকা ছয় পয়সার প্রয়োজন হবে। যা গত ৩০ দিনে সর্বোচ্চ ৫৩ পয়সা এবং সর্বনিম্ন ৫২ পয়সা পর্যন্ত ওঠা-নামা করে।

অন্যদিকে প্রতিবেশী ভারতের রুপির মূল্য বাংলাদেশি টাকার চেয়ে সামান্য বেশি। এতে দেখা যায়, এক রুপি সমান বাংলাদেশি এক টাকা ১৪ পয়সা। যা গত ৩০ দিনে এক টাকা ১৩ পয়সা থেকে এক টাকা ১৫ পয়সা পর্যন্ত ওঠা-নামা করে।

আরেক প্রতিবেশী মিয়ানমারের ক্যত বাংলাদেশি টাকার তুলনায় অনেক কম মান সম্পন্ন। বাংলাদেশি এক টাকা মিয়ানমারের ১৫ দশমিক ৬২ ক্যতের সমান। যা গত ৩০ দিনে সর্বনিম্ন ১৫ দশমিক ১৮ এবং সর্বোচ্চ ১৫ দশমিক ৬২ পর্যন্ত ওঠা-নামা করে।

টাকার চেয়ে মানের দিক থেকে পেছনে রয়েছে নেপালি রুপি। বাংলাদেশি এক টাকা নেপালি এক দশমিক ৩৯ রুপির সমান। যা গত ৩০ দিনে সর্বোচ্চ এক দশমিক ৪১ এবং সর্বনিম্ন এক দশমিক ৩৯ রুপি পর্যন্ত ওঠা-নামা করে।

আবার শ্রীলঙ্কার রুপির মান বাংলাদেশি টাকার বিপরীতে পাকিস্তানের মুদ্রার চেয়েও কম। অর্থাৎ বাংলাদেশি এক টাকা সমমূল্যের একটি পণ্য কিনতে হলে শ্রীলঙ্কাকে খরচ করতে হবে ২ দশমিক ১৮ রুপি। যা গত ৩০ দিনে সর্বোচ্চ ২ দশমিক ১৯ এবং সর্বনিম্ন ২ দশমিক ১৭ রুপি পর্যন্ত ওঠা-নামা করে।

গুরুত্বপূর্ণ সব সংবাদ  পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।

https://www.facebook.com/BangaliTimesofficel

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *