সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ০৮:৪২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
সৌন্দর্য বাড়াতে শা’রীরিক মি’ল`ন জরুরি যে কারনে?

সৌন্দর্য বাড়াতে শা’রীরিক মি’ল`ন জরুরি যে কারনে?

সৌন্দর্য বাড়াতে শা’রীরিক মি’ল`ন জরুরি যে কারনে?

শুধু মানসিক নয় বা শা’রীরিক তৃ’’প্তি নয়, সৌন্দর্যের জেল্লা বাড়াতেও জরুরি মি’লন৷ কোনও আকাশ কুসুম কল্পনা নয়, সত্যি সত্যি এবং সত্যি৷এমনটাই মত বিশেষজ্ঞদের৷

এর পিছনে তাঁরা খাড়া করিয়েছেন চিকিৎসাবিজ্ঞানের দৃ’ষ্টিভ’ঙ্গি থেকে কিছু যুক্তিও৷ কীভাবে, আসুন তা জেনে নিই-

 

 

১) আমা’দের চুল এবং ত্বক ভালো রাখার জন্য ইস্ট্রোজেন হরমোন দায়ী৷ আর যত বেশি মি’লন করা যায়, ততই মহিলাদের শরীরে বেশি করে উৎপন্ন হয় ইস্ট্রোজেন হরমোন৷ ফলে চেহারাতেও থাকে ফাটাফাটি জেল্লা৷ এছাড়াও সহ’বাসের ফলে উৎপন্ন কোলাজেন হরমোনও ত্বককে টানটান রাখতে সাহায্য করে৷

২) গবেষণায় দেখা গিয়েছে, যারা স’প্তাহে দু-তিনদিন নিয়মমাফিক যৌ’’নসম্পর্ক করেন, তাদের চেহারায় তারুণ্য বজায় থাকে, অন্যদের তুলনায় অনেক বেশি৷ কারণ তারা মানসিকভাবে বেশি সুখী হন৷

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

৩) যৌ’’নসুখের চরম সীমায় পৌঁছে আমা’দের শরীর থেকে নিঃসৃত হয় সেরাটোনিন, যা আমা’দের মুড নিয়ন্ত্রণ করে৷ আমা’দের হাসিখুশি, প্রাণোচ্ছ্বল রাখতেও এই নিউরোট্রান্সমিটারটি দায়ী৷ ফলে আমা’দের মনে অবসাদ গ্রাস করতে পারে না৷ চেহারাতেও থাকে এক ধরনের ফ্রেশ, ফুরফুরে লুক৷

৪) কোনও কোনও বিশেষজ্ঞের মতে, বক্ষদেশের সৌন্দর্য বাড়াতেও মি’লন অ’পরিহার্য৷

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

৫) স-হবা-সে শরীর থেকে প্রচুর পরিমাণে অক্সিটোসিন নির্গত হয়, আর অক্সিটোসিন আমা’দের শরীরের কোর্টিসেল নামক প্রধান স্ট্রেস হরমোনের মাত্রা কমিয়ে ফেলতে সাহায্য করে৷তাই আক্ষরিকই যাঁরা নিয়মিত স-হবা-সের মধ্যে থাকেন, তাদের জীবনেও থাকে অ’পার শান্তি৷

৬) সফল সহ’বাসের সময় আমা’দের শরীর থেকে এমন কিছু কেমিকেল বেরায় যা আমা’দের মনটাকে ভালো রাখতে খুব ফলপ্রসূ৷যেমন ডোপেমিন, আপনাকে সবসময় উজ্জীবীত রাখে,

সব কাজে জোগায় বাড়তি উৎসাহ৷পুরষদের শরীর থেকে বেরোনো টেস্টাস্টেরন কাজে নিয়ে আসে অতিরি-ক্ত উদ্দীপনা৷এন্ডোরফিন আপনার স্ট্রেস কমিয়ে আপনাকে রাখে রিল্যাক্সড৷মানে এক একবারের সহ’বাসে আপনি উপকৃত হবেন এতভাবে৷ ভাবা যায়!

৭) মি’লনের ফলে হার্টের কার্যকারিতা ও শরীরের র-ক্ত সঞ্চালন ভালো থাকে৷ একবারের মি’লনে প্রায় ৫০০ ক্যালোরির কাছাকাছি এনার্জি করচ হয়৷ ফলে খুব কম সময়েই

আপনার শরীর থেকে অল্প অল্প করে ঝরতে থাকে মেদ৷সুতরাং বলাই যায় নিয়মিত যোগা বা জিম সেন্টারে গিয়ে টাকা খরচ করার তুলনায় বাড়িতেই বজায় রাখু’ন আপনার স্বাভাবিক যৌ’-ন জীবন৷

৮) স্বাভাবিক এবং নিয়মিত যৌ’’নজীবনে আমা’দের মধ্যে বাড়ে আ’ত্মবিশ্বা’সও, মন থাকবে শান্ত ও ফোকাসড৷ বাড়বে আপনার সৃ-জ-নশীলতাও৷ ফলে আক্ষরিকই বিকাশ হবে আপনার অ’ভ্যন্তরীণ সৌন্দর্যের৷ আপনিও হয়ে উঠবে একেবারে অন্য ব্যক্তিত্ব।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *