মজার একটা তথ্য শেয়ার করি

মজার একটা তথ্য শেয়ার করি, আপনি কি জানেন টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিন শিপের ভ্রমণ করার সময় জাহাজ থেকে পাখিকে কোনপ্রকার চিপ্স না দেওয়ার জন্য একটা নিষেধাজ্ঞা আছে ।।

জাহাজ কর্তৃপক্ষ আপনাকে বারবার সতর্ক করবে, যদি না শুনেন তাহলে আপনার ছবি তুলে প্রশাসনকে দেওয়ার হুমকি দিবে। কমন ব্যাপার তাই না ভাবছেন এখানে মজার কি বিষয় ? মজার ব্যাপার হলো জাহাজ কর্তৃপক্ষ জাহাজের নিচতলায় বেশ ভালো দামে দেদারছে চিপস বিক্রি করে যাচ্ছে । টেকনাফ থেকে কোন চিপস নিয়ে আসলেও সেটা দেখার বা জব্দ করার কোন উপায় নেই।

আপনি যদি দেবতাখুম যান তাহলে আপনাকে ১০ জনের জন্য একটা ফরম কিনতে ৫০ টাকা দেওয়া লাগবে। আই রিপিট জাস্ট একটা ফরম। ধরেন আপনার লোক সংখ্যা ১২ থেকে ১৩ জন হলো সেক্ষেত্রেও আপনাকে ৫০ টাকা দিয়ে আরেকটা ফরম কিনতে হবে । দেবতাখুম এর রাস্তা খুব বেশী পরিমান ঝামেলা মনে না হলেও আপনাকে ১০ জনের জন্য এক হাজার টাকা দিয়ে একটি গাইড নিতে হবে যদি আপনি তারথেকে ১২ বা ১৩ জন আসেন তাহলে আরো ১০০০ টাকা দিয়ে আরেকটা গাইড নিতে হবে । কি সুন্দর অদ্ভুত একটা সিস্টেম । ও হ্যাঁ আরেকটা কথা সেই ফরমগুলো ফটোকপি করতে আপনাকে প্রতি ফরমের জন্য ৫ টাকা করে দিতে হবে ।

আপনি কি জানেন আপনি যদি সাজেকে একরাত বা একদিন বেশি থাকেন তাহলে চাঁদের গাড়ি যদি সারাদিন বসে থাকে তাহলেও আপনাকে দুই থেকে তিন হাজার টাকা অতিরিক্ত ব্যয় করতে হবে । এর কারণ হলো আপনি তাকে একদিন বসিয়ে রাখতে চান এজন্য, কিন্তু সাজেক টু খাগড়াছড়ি ভাড়া নাকি বেশ কম বলে মনে করে স্থানীয় চান্দের গাড়ির ড্রাইভার ও সমিতির লোকজনরা ।।

মানুষ আজকাল সাজেক কে গালি দিয়ে সেন্টমার্টিন যাচ্ছে । ফলাফল সেন্টমার্টিনে গলা কাটা হয় । আপনি আজকাল বন্ধের দিনে কোথাও খুব একটা ট্যুর করতে পারবেন না । কারণ ওই দিন আপনার অতিরিক্ত টাকা এবং ভীড় হজম করার শক্তি থাকতে হবে । এবার আমরা আমাদের নিজেদের দিকে তাকাই, কোন একটা স্পট ভাইরাল হলেই আমরা সেটাকে কামড়ায়া ধরি ।

আচ্ছা ট্যুরিস্টদের যে গলা কাটা হয় এটার জন্য কি ট্যুরিস্টরা কোনভাবেই দায়ী না ? আমরা পাহাড়ে গিয়া খুজি ফাইভ স্টার হোটেল দরকার হয় কমোড। ট্যুরে গিয়ে বিরানি ছাড়া আমাদের দিন চলে না। কোথাও ঘুরতে গেলে আমাদের অবস্থা হয় রাজা বাদশার মত। নাকি সব দোষ সরকারের ? আমরা কি ভ্রমণের জন্য একটা সুস্পষ্ট লিখিত এবং সুন্দর এবং ব্যবসায়ী ও ট্যুরিস্টদের মিলিত কোনো সিদ্ধান্তের ভেতরে স্পষ্ট নীতিমালা পেতে পারি না । প্রকৃতি টাকে আমরা একত্রে ধ্বংস না করে এটাকে ব্যবহার করতে পারি না । ব্যবসাটাকে কি আমরা টুরিস্ট বান্ধব করতে পারিনা, আমরা ট্যুরিস্টরা কি ভ্রমণ স্পট কে নিজের ঘর মনে করতে পারি না। ভাইরে প্রকৃতির সাথে খেলবেন না প্রকৃতি যদি রিভেন্স নেওয়া শুরু করে অবস্থা ভয়াবহ হয়ে যাবে ।

আরেকটা কথা আমরা টুরিস্ট, কোন টাকাওয়ালা এটিএম মেশিন না । সুস্পষ্ট নীতিমালা বানান, খরচের লিগ্যাল হিসাব দেন, টুরিস্ট বান্ধব পরিবেশ তৈরি করেন তারপর আমরা ট্যুরিস্টরা যদি কোন আইন না মানি,পরিবেশ নোংরা বা ধ্বংস করি তাহলে আইনানুগভাবে শাস্তি দেন ।।
তবুও এই প্রকৃতি টাকে বাঁচান,দেশটাকে বাঁচান, পাহাড় টাকে বাঁচান, সমুদ্র টাকে বাঁচান, নদী বাঁচান সর্বোপরি মানুষগুলোকে বাঁচান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Next Post

উ এর কথা শুনে মাকে এবং মায়ের কথা শুনে বউ কে জাজ করবেন না।

Tue Apr 6 , 2021
বউ এর কথা শুনে মাকে এবং মায়ের কথা শুনে বউ কে জাজ করবেন না। কারণ আপনার জীবনে দুইজনই অপরিহার্য অংশ আপনি কাউকেই বাদ দিতে পারবেন না। কেননা,আপনার মা কে বাদ দিলে যেমন আপনি একপ্রকার এতিম হয়ে যাবেন, ঠিক তেমনই আপনার বউকে বাদ দিলে আপনার সন্তানদের উপরেও আপনার মতোই প্রভাব পড়বে। […]