আপু…আপু…মা আপু কোথায়?

আপু…আপু…মা আপু কোথায়?
দেখ গিয়ে রুমে।সেখানেই আছে হয়তো…!

শাওন তার আপুর রুমের দিকে এগিয়ে যায়।দরজা খোলতেই তার আপু আতকে উঠে।তাড়াহুড়ো করে ওড়না দিয়ে চোখ মুছে হাসি মুখে বলেঃ
-ভাই,আমাকে ডাকছিলি?
শাওন কথা বলে না।সে তার বোনের চোখের দিকে তাকিয়ে আছে।তাড়াহুড়ো করে চোখের পানি মুছে ফেললেও চোখের কোণে জমে থাকা অশ্রু এখনো স্পষ্ট। কান্নার কারণে চোখ দুটি লাল হয়ে আছে।তার বোনের কণ্ঠস্বর অনেকটা পাল্টে গেছে।শাওন তার বোনের চোখের দিকে তাকিয়ে আর কিছু না বলে মা মা বলে চেঁচাতে লাগলো।তখন তার মা রান্নাঘর থেকে বের হয়ে এসে বললঃ

-কি হলো?এভাবে চেঁচাচ্ছিস কেন?
-আপুকে বকেছে কে?
-তোর আপুকে বকা লাগে নাকি?নেকামো!
-খবরদার মা।একটা বাজে কথা বলবা না।

-তুই এভাবে কথা বলছিস কেন?তুই আমার ছেলে হয়ে আমার সাথে এভাবে মেজাজ দেখিয়ে কথা বলছিস!
-আমি তোমার ছেলে হই বা অন্যের।আমার বোনকে যদি আর একটা বার কাঁদতে দেখি মা। তবে কিন্তু ভালো হবে না।
শাওনের চেঁচামেচি শুনে পাশের রুম থেকে তার বাবা বেরিয়ে এলো।বললঃ
-কি ব্যাপক শাওন।এভাবে চেঁচামেচি করছিস কেন?
-কিছু না বাবা।এমনিতেই।

-আচ্ছা।তুমি যে তোমার বোনের পক্ষ নিয়ে মা কে কথা শুনাচ্ছ।তা কি ঠিক?
-আমার বোনকে কাঁদতে দেখলে কোনটা ঠিক আর কোনটা বেঠিক তা আমি দেখবো না বাবা!
পাশ থেকে শাওনের বোন শাওনের হাত ধরে বলে-ভাই।কি করছিস।বাবা মায়ের সাথে এভাবে কথা বলতে নেই।তুই রুমে আয়।তখন শাওন রুমে যাবে এমন সময় তার মা বলে উঠেঃ
-তোমার বোনের আজকের এই দিনের জন্য সে নিজেই দায়ি।
শাওন আর এক পা ও এগুলো না।তার হাত থেকে বোনের হাতটা ছাড়িয়ে সে তার মায়ের দিকে তাকিয়ে বললঃ
-বাহ্ মা।যা বলেছ।অসাধারণ। বাহ্।

তোমরা যখন আপু বিয়ে ঠিক করেছিলে তখন আপু বলেছিলো তার পছন্দ আছে।তোমরা তার কথা শুনেছিলে?শুন নি!তোমরা কি করলে!রাত দিন তাকে মেরে একটা টাকার মেশিনকে বিয়ে করতে রাজি করালে।আপু বাবার সম্মান রক্ষার্থে সবকিছু চুপিসারে সয্য করে নিলো।বিয়ে হলো,সংসার হলো।বিয়ের ৩ সপ্তাহের মাথায় আপু যখন ঐ বাড়িতে অত্যাচারিত,নির্যাতিত,তখন তোমরা বললে- স্বামীর সংসার এভাবেই সব কিছু মেনে নিয়ে করতে হয়।

মা, তুমি মনে করে দেখ তো বাবা কখনো তোমার উপর নির্যাতন করেছিলো কি না?কখনো বাবা তোমার উপর হাত পর্যন্ত তোলেছিলো কি না? বাবা যখন তার প্রথম স্ত্রীর সন্তান,আমার আপুর পক্ষ নিয়ে একদিন কথা বলেছিলো।সে কথা সইতে না পেরে তুমি আমাকে নিয়ে নানু বাড়ি চলে গিয়েছিলে।যে তুমি সামান্য পক্ষ-বিপক্ষের মন্তব্য সয্য করতে ব্যর্থ।সেখানে একজন মা হয়ে মেয়েকে কি করে বলো সে অত্যাচার অবিচার মেনে নিয়ে সংসার করতে?
শুনো মা।আমি তোমার গর্ভের সন্তান।

আপু অন্যের।তবে আমাদের পিতা একজনই।আপুকে কেউ ছোট করে কথা বললে আমার গায়ে লাগে।আপুকে নিয়ে কে হাসি-মসকরা করলে আমার কলিজায় লাগে।সে আপুর চোখে পানি দেখলে আমার কেমন লাগবে মা তুমি বলো?
বোন পাশে দাঁড়িয়ে কাঁদে।বাবা কিছু বলে না।মাও চুপ করে আছে।শাওন তার চোখদুটি মুছে বলেঃ-বাবা,আপু যদি কখনো তোমাদের বোঝা মনে হয়,তবে আমাকে বলে দিও।এই কমল হাত দুটি শক্ত করে কাজে নেমে পড়ব।

অর্থ যোগাবো।তবুও বোনকে কারোর কথা শুনতে দিবো না।কখনই না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Next Post

আচ্ছা মা আপু সেই কবে তার শশুড় বাড়ি গেসে প্রায় দুমাস হয়ে গেলো

Tue Apr 6 , 2021
আচ্ছা মা আপু সেই কবে তার শশুড় বাড়ি গেসে প্রায় দুমাস হয়ে গেলো একটা ফোন ও দিলোনা কেন আমাকে? ” বিয়ে দিয়ে দিছি সংসার করতেছে তুই কি ওর আপন ভাই নাকি না আমরা ওর আপন মা? আপদ বিদায় দিয়ে দিসি ফোন দেয়ার কি দরকার” মায়ের এমন দ্বারা কথা হালকা মুচকি […]