বয়স মাত্র বারো : একটি বালকের গল্প

আজ একটি গল্প বলবো । একটি বালকের গল্প । বালকের নাম Omari McQueen । জাতে ক্যারাবিয়ান । মা গৃহবধূ, বাবা বাস ড্রাইভার । তারা পাঁচ ভাই বোন । সে ছোট । থাকে দক্ষিণ লন্ডনের একটি পাড়ায় । নাম Peckham ।
বালকটির একটি রোগ আছে । Dyslexia । ডিজলেক্সিয়া একধরনের লার্নিং ডিফিকাল্টি, যার কারণে শব্দ লিখতে পড়তে অথবা ধরতে কিংবা মনেও রাখতে পারে না ।

Omari McQueen -এর পড়তে, লিখতে খুব কষ্ট হতো । স্কুলে ঠিকমতো পড়া পারতো না । শব্দ বুঝে না । এই সমস্যায় শব্দের লার্নিংয়ে প্রব্লেম হলেও তাদের জেনারেল বুদ্ধিমত্তা এবং যোগ্যতায় কোনো ঘাটতি হয় না ।
দশ বছর বয়সে কোনোমতে প্রাইমারি স্কুল শেষ করেছে । এগারোতে পা দিয়ে হাই স্কুলে যাবার প্রাক্কালে স্কুল শিক্ষিকা তার মা’ কে ডেকে বললো, আপনার ছেলে হাই স্কুলে পড়ার যোগ্য না । সে কোনো বিষয় ঠিক মতো বুঝে না । কারণ তার Dyslexia আছে । শেষমেস স্কুল থেকে নিয়ে এসে মা তাকে হোম স্কুলিং করালেন ।

১২ বছরের Omari McQueen এখন ইংল্যান্ডের সবচেয়ে কম বয়সী শেফ, একজন অন্যতম সেলেব্রিটি শেফ ব্রিটেনে এবং বিশ্বে, যার BBC তে নিজস্ব টিভি শো আছে, যে একটি দামি রেস্টুরেন্টের মালিক, তার লক্ষ লক্ষ ফলোয়ার ইউটিউব চ্যানেলে, যে ইতিমধ্যে রান্নার উপর একটি জনপ্রিয় বই Omari McQueen’s Best Bites লিখে ফেলেছে ।
সাত বছর বয়স থেকেই Omari ডিজলেক্সিয়ায় ভুগছিল । শব্দ পড়তে পারে না । একদিন মায়ের খুব মাথা ব্যথা করছিলো । মা’ কে হসপিটালে যেতে হলো । বাবার কাজে যেতে হবে । ছোট ছোট বাচ্চাদের রেঁধে খাওয়াবে কে । তার চেয়ে তিন বছরের বড়ো ভাই এবং তাকে বাবা ডেকে নিয়ে পাস্তা রান্না শেখালেন । বললেন, মা যতদিন হসপিটালে থাকবেন, দিনের বেলা তাদেরকে রান্না করে খেতে হবে, বাবা বাস চালানোর কাজে চলে যাবেন । বড়ো ভাই থেকে Omari সাত বছর বয়সেই শিখে নিলেন পাস্তা রান্না । বড়ো ভাইয়ের পাশে বসে ইউটিউবে রান্না দেখতেন অন্যদের ।

ভিডিও দেখে দেখে নিজে নিজে বিভিন্ন রান্নার এক্সপেরিমেন্ট করতো Omari । আট বছর বয়সে সিদ্ধান্ত নিলেন নিজেই একটি রেস্টুরেন্ট খুলবেন ! সে গল্প আরেক ইতিহাস । সেই অধ্যায় পেরিয়ে ক্যারাবিয়ান কুজিনের Dipalicious নামের রেস্টুরেন্ট খুলে ফেললেন । তার রান্নার দক্ষতা দেখে এক টিভির পরিচালক তাকে টিভিতে শো করতে দিলেন । তার টিভি শো দেখে এক প্রকাশক তার নিজের রেসিপিগুলোর বই বের করতে এগিয়ে এলেন । বড়ো ভাই তাকে ইউটিউব চ্যানেল খুলে দিলেন । সে রান্না করার সময় বড়ো ভাই ক্যামেরা ধরে রাখতো । আবার সেই ভাইটিও কম মেধাবী নয় ! মাত্র পনেরো বছর বয়সে মুভি বানানোর উদ্যোগ নিয়েছে !
মানুষ চাইলে যে কোনো বাধা অতিক্রম করতে পারে । Omari তার উদাহরণ । যে বালকটি পড়তে পারে না ঠিক মতো, সে থেমে থাকে নি । যে সমবয়সী বালকদের গালির শিকার হতো, সে আজ লক্ষ লক্ষ লোকের হিরো ।

যে বালককে তার শিক্ষক বলেছিলো – তোমাকে দিয়ে কিচ্ছু হবে না, তুমি পড়তেই পারো না, সে বালক বারো বছরেই পপুলার একটি বই লিখে ফেললো । যে নানী এবং মা তাকে রান্না শেখানোর কথা, সেই নানী এবং মা কে সে নতুন নতুন রেসিপি শেখায় । যে আট বছর বয়সে বুঝেছিল প্রাণী হত্যা একটি নির্দয় কাজ, সেই থেকে সে মিট খাওয়া স্টপ করে দিয়ে ভেজিটেরিয়ান হয়ে গেলো । বয়সীদেরকে সে দশ বছর বয়স থেকে টিভি শো এর মধ্যে দিয়ে শেখায় – কি করে মাংসের পরিবর্তে ভেজিটেবল খেয়ে আরো হেলদি জীবন যাপন করতে পারে । যে এগারো বছর বয়স থেকে এতিম বাচ্চাদের ক্রিসমাসে ডিনার করার আয়োজন করে নিজ হাতে, স্কুলে বুলির শিকার হওয়া বাচ্চাদেরকে শেখায় কি করে বুলির বিরুদ্ধে উঠে দাঁড়াতে হবে, যে বালকটি বাচ্চাদের বিভিন্ন ইস্যুর চ্যারিটি অর্গানাইজেশনে হেল্প করে ।

জীবন থেকে সে শিখেছে । তার অনুপ্রেরণা বিখ্যাত হলিউড অভিনেতা Chadwick Boseman, যে নিজেও ক্যান্সার হয়েও দমে না গিয়ে অভিনয় এবং ছবি তৈরী করে গেছে । ব্ল্যাক প্যান্থারের এই অভিনেতার সেই কথাটি তার কানে সবসময়ে বাজে – whatever goes on in your life that’s miserable, you should carry on.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Next Post

নূরানী চেহারার এই মহান ব্যক্তি কোন মাদ্রাসার মোহাদ্দীস কিংবা কোন মসজিদের ইমাম নন।

Tue Apr 6 , 2021
নূরানী চেহারার এই মহান ব্যক্তি কোন মাদ্রাসার মোহাদ্দীস কিংবা কোন মসজিদের ইমাম নন। তিনি একজন দেশ সেরা একটা কলেজের প্রভাষক। . সিলেটের জালালাবাদ ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজে দীর্ঘদিন যাবত পদার্থ বিজ্ঞানের লেকচারার হিসেবে ছিলেন। তিনি নবিজীর সুন্নাহকে ভালোবেসে দৈনিক পাঞ্জাবী, টুপি পরে কলেজে ক্লাস নিতেন। . সম্প্রতি কলেজ কর্তৃপক্ষ […]